কলকাতা: প্রায় ৪৮ ঘন্টা হয়ে গিয়েছে আমফান লন্ডভন্ড করে চলে গিয়েছে। কিন্তু এখনও স্বাভাবিক হতে পারেনি বাংলা। যেখানেই তাকাবেন না কেন সেখানেই শুধু ধ্বংসাত্বক ছবি। পুরো লন্ডভন্ড কলকাতা। প্রায় ৪৮ ঘন্টা কেটে বাংলার বহু জায়গায় নেই নেটওয়ার্ক। এমনকি প্রায় ৪৮ ঘন্টা সময় ধরে চলছে লোডশেডিং।

যে ভাবে দুই ২৪ পরগণা, কলকাতা এবং শহরতলি ধ্বংস করে দিয়ে গিয়েছে আমফান তাতে আগামী সাতদিনের আগে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়া সম্ভব নয় বলে মনে করছে বিভিন্ন ওয়াকিবহালমহল। উপকূল এলাকার মানুষদের ধাক্কা সামলে উঠতে মাসখানেক লেগে যেতে পারে বলেও মনে করা হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে ক্রমশ বাড়ছে উত্তেজনা।

যেমন আজ শুক্রবার জল ও বিদ্যুৎ এর দাবিতে বেহালায় রাস্তা অবরোধ করলেন স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ৷ যা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। এলাকার মানুষের অভিযোগ, প্রায় ৪৮ ঘন্টা কেটে গিয়েছে। নেই জল-বিদ্যুৎ। আর বিদ্যুৎ না থাকায় চলছে না পাম্প৷ দেখা দিয়েছে জলের সমস্যা৷ এই বিষয়ে প্রশাসনের তরফে কোনও সদুত্তর না মেলাতে রাস্তাতেই বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে মানুষজন।

উল্লেখ্য, আমফানের জেরে বিদ্যুৎবিহীন বেহালার একাধিক এলাকা৷ বেহালার বামাচরণ রায় রোডে বাড়ির ওপর গাছ পড়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন৷ প্রশাসনের তরফে ৪৮ ঘন্টা কেটে গেলেও গাছ সরানোর কোনও তৎপরতা দেখা যায়নি বলে অভিযোগ সাধারণ মানুষের। একই সঙ্গে তাঁদের দাবি, নেই জলও। বিদ্যুতের লাইনও সারানোর কোনও তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ মানুষের। আর এহেন একাধিক দাবিতে এদিন ১২১ নম্বর ওয়ার্ডে জয়শ্রী মোড়ে স্থানীয় বাসিন্দারা রাস্তা অবরোধ করেন৷

এছাড়া কলকাতা পুরসভার ১২০ নম্বর ওয়ার্ডে অর্থাৎ বেহালা রায় বাহাদুর রোডে জোড়া বটতলা এলাকায় স্থানীয় বাসিন্দারা বিক্ষোভ দেখান৷ বিদ্যুৎ এর দাবিতে চলে পথ অবরোধ৷ প্রায় ৪৮ ঘণ্টা কাটতে চলল। অথচ এখনও রাজ্যের একাধিক জায়গা ডুবে অন্ধকারে। বিদ্যুৎহীন রাজ্যের বেশ কিছু এলাকা। নেই ইন্টারনেটও। কয়েদিন সময় লাগতে পারে বলে আগেই জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শুক্রবার সকালেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানালেন, সব সংযোগ ফেরানোর জন্য প্রশাসনিক স্তরে সবরকমের চেষ্টা চলছে। এদিন কলকাতায় এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিমানবন্দরে তাঁকে অভ্যর্থনা জানাতে যাওয়ার আগে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ”আমার বাড়িতেই টিভি চলছে না।”

তিনি জানিয়েছেন, মোবাইল কানেকশন ছাড়া আর কিছু নেই । তিনি বলেন, এটা জাতীয় বিপর্যয়ের থেকেও বেশি। সব শেষ হয়ে গিয়েছে বলে উল্লেখ করে মমতা বলেন, ‘একটু সময় লাগবে তবে সব ঠিক হয়ে যাবে। ইতিমধ্যেই কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে।’ নবান্ন থেকে বেরিয়ে একাধিক জায়গায় পরিদর্শনে গিয়েছিলেন বলেও জানান তিনি। তাঁর কথায়, ”একদিকে লকডাউন চলছে, করোনা আছে আবার সাইক্লোন। তিনটি চ্যালেঞ্জের সঙ্গে আমরা লড়াই করছি।”

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV