স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর মুখোমুখি হওয়ার আগে দিল্লির অশান্তি নিয়ে কবিতা লিখলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ ‘নরক’ নামে ওই কবিতাটি বাংলা, হিন্দি ও ইংরাজি-তিনটি ভাষাতেই  লিখেছেন তিনি৷ বুধবার ফেসবুকে কবিতাটি পোস্ট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

২৫ জানুয়ারি অর্থাৎ গতকাল ভুবনেশ্বর গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আগামী শুক্রবার ভুবনেশ্বরের একটি পাঁচতারা হোটেলে হতে চলেছে ইস্টার্ন রিজিওনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের বৈঠক। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পৌরহিত্যে এই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন ৫টি রাজ্য বাংলা, বিহার, ওড়িশা, ঝাড়খন্ড ও ছত্রিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী, মুখ্যসচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিবরা।

ইস্টার্ন রিজিওনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের বৈঠকের পর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে একান্তে বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ওই বৈঠকে রাজ্যের পক্ষ থেকে রাজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত সমস্ত অন্তর্দেশীয় বর্ডারের পরিস্থিতি নিয়ে একটি বিশেষ রিপোর্ট কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে সূত্রের খবর। যদিও এই বৈঠকের বিষয়ে সরকারি তরফে এখনও কিছু জানানো হয়নি।

ভুবনেশ্বরে যাওয়ার আগে সোমবার বিমানবন্দরে দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ে সংযত মন্তব্য করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, ‘‘দিল্লিতে যা চলছে, তাতে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন, আমরা নজর রাখছি। কিন্তু কেন এ সব চলছে, আমি জানি না।’’ তিনি এ কথাও বলেছেন, ‘‘প্লিজ এটা নিয়ে পলিটিক্স করবেন না। যা চলছে, তাতে আমরা উদ্বিগ্ন। কিন্তু কেন এ সব চলছে, তা আমি জানি না।’’ মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘‘আমি মনে করি, সবারই শান্তি রক্ষা করা দরকার। আমাদের দেশ শান্তির দেশ।’’

দিল্লি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী এই মন্তব্য শুনে তাঁকে তীব্র কটাক্ষ করেছে সিপিএম৷ তাদের মতে, শুধু উদ্বেগ প্রকাশ করেই দায় সেরেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ রাজনৈতিক মহল মনে করছে, দিল্লি নিয়ে তাঁর সংযত মন্তব্য কেন্দ্রের পাশে থাকার বার্তা দিতে পারে৷ তাই এই ইস্যুতে নিজেকে বিতর্ক থেকে দূরে রাখতেই কবিতাটি পোস্ট করেছেন৷

 ভুবনেশ্বরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মুখোমুখি হয়ে দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি, দিল্লির অশান্তি ইত্যাদি বিষয় নিয়ে সেখানে মমতা কিছু বলেন কি না, তা নিয়ে কৌতূহল রয়েছে রাজনৈতিক শিবিরে।