ওয়াশিংটন: ওজন কমানোর সমস্যা আজকাল কমবেশি অনেকেরই রয়েছে। কেউ কেউ তা কমাতে গিয়ে পড়েন বিপদে। আবার কারুর ক্ষেত্রে তা কমাতে গিয়ে রোগের উৎপত্তি হয়। ওজন কমাতে যেমন আপনাকে বাদ দিতে হবে ফাস্ট ফুড তেমন ওজন কমাতে চিকিৎসকের দ্বারস্থ হলেই তিনি আপনাকে অ্যালকোহল ও চিনি বাদ দিতে বলবেন। কিন্তু এই ব্যক্তি যা করলেন তা সত্যিই অবাক করবে। তিনি নাকি বিয়ার খেয়েই কমাতে চাইছেন ওজন। ওহিওর ব্যক্তিটি আগে গিয়েছিলেন ডাক্তারের পরামর্শ নিতে। সেখানে গিয়ে তিনি দেখেন তার পছন্দের অনেক খাবার পড়েছে বাদ। কিন্তু সব খাবার বাদ দিলে তিনি খাবেন কী।

অগত্যা উপায় না দেখে তিনি শুরু করলেন বিয়ার খাওয়া। তার আশা এতে নাকি তিনি ওজন কমাতেও পারবেন। এই বিশেষ ডায়েট তার জন্যে নাকি খুবই কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। ২০১৯-এও এই ডায়েট মেনে তিনি ২০ কেজি ওজন কমিয়েছিলেন। আর এখন ১৮ কেজি কমানোর আশায় আছেন। এখন এই বিশেষ ডায়েটটি তিনি লোকের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে চান। তিনি নিজের পেজ খুলেছেন ও কাজ করছেন এই নিয়ে। তার আশা এই নতুন জ্ঞান বিপ্লব ঘটাবে।

তিনি ব্রেকফাস্ট বাদ দিয়েছেন। দুধ ও চিনি নেই তালিকায়। রয়েছে শুধু ব্ল্যাক কফি। আর সঙ্গে বাকি সময়টা বিয়ার। ডাক্তারেরাও তার এই সন্ধানে অবাক হয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে যে বিয়ারে অ্যালকোহল কম থাকায় তা কোনো নেগেটিভ প্রভাব ফেলছে না। তবে বিয়ার যে সত্যিই ওজন কমাতে কার্যকর তার কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ মেলেনি। দিনে কিছু না খেয়ে তিনি যে বিয়ারটি খান, সেই ক্যালোরিতেই তিনি শক্তি পান। তাই সেই ক্যালোরি ফ্যাট রূপান্তরিত হয় না।

তবে আপনারা এমনটা করতে গেলে আগে অবশ্যই ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে পরামর্শ নেবেন। এছাড়াও সবার শরীরের সহ্য ক্ষমতা সমান হয় না। তার জন্যে এই বিয়ারের ফর্মুলাটি কাজ দিয়েছে বলে যে আপনারও লাভ হবে এমনটা ভাববেন না।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।