স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে মৌমাছির চাকে ঢিল মেরেছিল৷ আর বিপত্তি৷ প্রায় এক ঘণ্টা ধরে এলাকায় রাজ করল মৌমাছির দল৷ ঘটনাটি ঘটেছে বর্ধমানের ভাতার থানার ভাতার কামারপাড়া রাস্তার চণ্ডীপুর আশ্রমের কাছে৷ ঘটনায় ক্ষিপ্ত মৌমাছির হুলের আক্রমণে জখম হলেন পাঁচ পড়ুয়া সহ মোট সাত জন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ভাতার কামারপাড়া রাস্তার উপর চন্ডিপুর আশ্রমের কাছে একটি বটগাছে একটি বিশাল মৌমাছির চাক ছিল। সেই মৌমাছির চাকে কেউ বা কারা ঢিল ছুঁড়ে পালিয়ে যায়। ঢিল ছোঁড়ার পর ওই চাক থেকে কয়েক হাজার মৌমাছি উড়তে শুরু করে।

আরও পড়ুন : কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘মাস্টার্স’, Zomato-র ডেলিভারি বয়ের যোগ্যতায় চমক

ঠিক সেই সময় আলিনগর থেকে টিউশন পড়ে তিন জন পড়ুয়া বাড়ি ফিরছিল। অপর দুই ছাত্র বামুনারা হাই স্কুলে যাচ্ছিল। আচমকা তারা মৌমাছির আক্রমণের মুখে পড়ে। মৌমাছির থেকে বাঁচতে পাশের জলাশয়ে ঝাঁপ দেয় পঞ্চম ও ষষ্ঠ শ্রেণীর পড়ুয়ারা।

বিষয়টি দেখতে পেয়ে পাঁচ পড়ুয়াকে বাঁচাতে ছুটে যায় স্থানীয় দুই বাসিন্দা। তাঁরাও মৌমাছির হুলে আক্রান্ত হন। এরপর স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে এসে ওই গুরুতর আহত সাত জনকে ভাতার হাসপাতালে ভরতি করেন। সেখানেই তাঁদের চিকিৎসা চলছে৷

আরও পড়ুন : দেড়শো বছরের পুরোন সরস্বতী পূজা, একই চালায় অধিষ্ঠিতা লক্ষ্মীও

এদিন সকালে প্রায় একঘণ্টা মৌমাছির দল গোটা রাস্তায় দাপিয়ে বেড়ায়। ফলে রাস্তায় যান চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে ভাতার থানার পুলিশ রাস্তায় সিভিক ভলেন্টিয়ারদের নামায়। প্রায় ঘণ্টা খানেক এভাবে চলার পর আস্তে আস্তে মৌমাছির দল চাকে ফিরে যায়৷ তারপর যান চলাচল স্বাভাবিক হয় ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আসে।