ভ্রমণ পিপাসীদের অন্যতম স্বর্গরাজ্য হল ভারত৷ এখানে যেমন রয়েছে আকাশচুম্বী পর্বত তেমনই রয়েছে নীলাভ সমুদ্র, সোনার আভাযুক্ত বালিয়ারি ও মরুভূমী৷দেশ-বিদেশের বহু অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় মানুষ বছরের বিভিন্ন সময়ে ভির জমায় ভারতের বিভিন্ন স্থানে৷প্রত্যেকেরই ইচ্ছা থাকে নিজের মনের মতো করে এই প্রকৃতির সৌন্দর্যটা ভোগ করে নেওয়া৷জানা গিয়েছে ভারতেই এমন অনেক স্থান আচে যেখানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করারা জন্য এখনও পৌঁছাতে পারেনি ভ্রমণ পিপাসুরা৷

এমনই কিছু স্থানের সন্ধান রইল যেখানে নান কারণে আজও পরেনি কোনও মানুষের পায়ের ধুলো…

আকশাই চিন, জম্মু-কাশ্মীর: কাশ্মীর উপত্যাকায় থাকা ভয়ঙ্কর স্থানগুলির মধ্যে অন্যতম হল আকশাই চিন৷ এই স্থানটি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই ভারত ও চিনের মধ্যে দ্বন্দ্ব লেগে রয়েছে৷স্থানটি রয়েছে লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের উপর৷ এই স্থানে সাধারণ মানুষসহ যেকোনও দেশেরই প্রবেশ নিষেধ৷ অতিউৎসাহী ব্যক্তিরা গুলিতে প্রাণ হারাতে না চাইলে এই স্থানে যাবেন না৷

সাইলেন্ট ভ্যালি ন্যাশানল পার্ক, কেরালা: ২০১৪ সালের মাওবাদী হামলার পর থেকেই এই অঞ্চলে সাধারণ ভ্রমণকারীদের প্রবেশ নিষেধ৷ কিন্তু স্থানটির প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কথা এক কথায় স্বীকার করে নেয় সকলেই৷

চম্বল নদীর অববাহিকা, মধ্যপ্রদেশ: প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাশাপাশি ওয়াইল্ড লাইফ প্রেমী মানুষদের কাছে এই অঞ্চলটি অত্যন্ত প্রিয়৷ কিন্তু এখানে যাওয়া মানা৷ তার কারণ ছবিতে দেখতে পা্ওয়া কুমিরটি নয়৷ আসল কারণ অঞ্চলটি জাকাতদের আঁখরা৷

নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ: নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের কিছু স্থানে যাওয়া সম্ভবপর৷ যদি আপনি স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি পান৷ তবে উপজাতি অধ্যুষিত এই অঞ্চলে কোনও সাধারণ মানুষের প্রবেশ অসাধ্য৷

ব্যারোন দ্বীপপুঞ্জ, আন্দামান: আন্দামানের ব্যারোন দ্বীপপুঞ্জেই রয়েছে ভারতের একমাত্র জীবন্ত আগ্নেওগিরি৷ নির্দিষ্ট দূরত্বে থেকে আপনি এই আগ্নেওগিরির সৌন্দর্য উপভোগ করতেই পারেন৷ তবে ভুলেও এর খুব কাছে যেতে চাইবেন না৷কারণ তবে নিশ্চিত মৃত্যু৷

নর্থ সেন্টিনাল দ্বীপপুঞ্জ, আন্দামান: এই নির্দিষ্ট দ্বীপটি সেন্টিনেলেসে উপজাতির অধিগ্রীহিত৷ যেখানে সাধারণ মানুষের প্রবেশ একেবারেই মানা৷ তাও যদি কোনও অতিউৎসাহী ব্যক্তি কৌশলে এই দ্বীপে প্রবেশ করতে চায় তবে তাঁকে মরতে হবে বিষাক্ত তীরের আঘাতে৷

তুরা, মেঘালয়: প্রচুর পার্বত্য গুহা, উন্মত্ত জলপ্রপাত ও সবুজের আচ্ছাদন তুরা আপনার জন্য নিয়ে এসেছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ঝুড়ি৷ কিন্তু অঞ্চলটিতে বহু জঙ্গি সংগঠনের বাড়বাড়ন্ত থাকার কারণে সেখানে সাধারণের প্রবেশ নিষেধ৷