জয়পুর: এবার রাজস্থান। রোষের মুখে মরুরাজ্যের সিকার এলাকার এক অটো ড্রাইভার। ‘জয় শ্রী রাম’, ও ‘মোদী জিন্দাবাদ’ ধ্বনি দিতে অস্বীকার করায় ৫২ বছরের এক অটো চালককে বেধড়ক মারের অভিযোগ উঠেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ৫২ বছরের অটোচালক ‘জয় শ্রী রাম’, ও ‘মোদী জিন্দাবাদ’ ধ্বনি দিতে অস্বীকার করায় তাঁকে নৃশংস ভাবে মারে দুই আক্রমণকারী। অটোচালকের দাবি, আক্রমণকারীরা তাঁর দাঁড়ি টেনে তাঁকে ‘পাকিস্তান যাও’ বলতে থাকে। পুলিশ সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই দুই হামলাকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গফফর আহমেদ কাঁচাওয়া নামে আক্রান্ত ব্যক্তি পুলিশকে জানিয়েছে, জয়ধ্বনি দিতে অস্বীকার করায় অভিযুক্তরা তাঁর ঘড়ি, টাকা পয়সা কেড়ে নেয়। একই সঙ্গে মেরে তাঁর দাঁত ভেঙে দেওয়া হয়, চোখ এবং মুখ মেরে ফুলিয়ে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন- ‘শিল্প সম্মেলনের খরচ, রাজ্যে আসা লগ্নির চেয়ে বেশি নয় তো’, খোঁচা রাজ্যপালের

দায়ের হওয়া এফআইআর অনুযায়ী, শুক্রবার ভোর ৪ টের দিকে গফফর আহমেদ নামে ওই অটো ড্রাইভার পাশের গ্রামে যাত্রীদের নামিয়ে ফিরছিলেন। সে সময় একটি গাড়িতে থাকা দুই ব্যক্তি তাঁকে থামিয়ে তামাকের জন্য জিজ্ঞাসা করেন।

তবে সে তামাক দিলেও তাঁরা তা নিতে রাজি হয়নি বলে দাবি। এরপরই তাঁকে ‘জয় শ্রী রাম’, ও ‘মোদী জিন্দাবাদ’ বলতে বলা হয়। কিন্তু সে তাতে রাজি না হওয়ায় অভিযুক্তরা লাঠি নিয়ে তাঁর ওপর হামলা চালায়।

সংবাদসংস্থাকে দেওয়া স্বাক্ষাতকারে ওই অটো চালক জানিয়েছেন, একটি গাড়ি তাঁর গাড়ির সামনে এসে রাস্তা আটকায়। এরপর সেখান থেকে দুইজন নেমে তাঁকে ‘জয় শ্রী রাম’, ও ‘মোদী জিন্দাবাদ’ বলতে বলে, সে রাজি না হলে তাঁকে লাঠি দিয়ে মারা হয়, চড় মারা হয় এমনকি তাঁর দাঁড়িও টেনে ছেঁড়ার চেষ্টা হয় বলে জানিয়েছেন তিনি।

পুলিশ সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্তদের নাম শম্ভু দয়াল জাঠ ও রাজেন্দ্র জাঠ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, মদ খেয়ে আক্রান্তকে বেধড়ক মার মেরেছে অভিযুক্তরা।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও