মুম্বই: করোনা কালে একের পর এক থমকে যাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (BCCI) পরিকল্পনা৷ ২০২১ আইপিএল স্থগিত (IPL 2021 suspended) হয়ে গিয়েছে৷ তা পুনরায় শুরু করা যাবে কি না, পরের মরশুমের আইপিএল ক’টি দলের হবে? এই মুহূর্তে এই প্রশ্নের উত্তর নেই বিসিসিআই-এর কাছে৷

পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এতদিনে ঠিক হয়ে যেত ২০২২ আইপিএলের (IPL 2022) রূপরেখা৷ মে মাসেই ঠিক হয়ে যাওয়ার কথা ছিল আইপিএলের পঞ্চদশ সংস্করণের দু’টি দলের নাম৷ কিন্তু কোভিড-১৯ এর (COVID-19) কারণে এ সব এখন অথৈই জলে৷ করোনার জন্য স্থগিত হয়ে যাওয়া আইপিএলের চতুর্দশ সংস্করণ শেষ করাই এখন বোর্ডের অগ্রাধিকার৷ আগামী বছরের আইপিএল নিয়ে পরে ভাববে বোর্ড৷

বিসিসিআই-এর এক কর্তা জানিয়েছেন, ‘আইপিএলের নতুন টিম নিয়ে কথা বলার সময় এটা নয়। স্থগিত হয়ে যাওয়া আইপিএল কীভাবে শেষ করা যায়, সেই রাস্তাটা আমাদের আগে খুঁজে বের করতে হবে। তারপর ২০২২ আইপিএল নিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারব৷ পরের বছর আইপিএলে নতুন টিমের সংযোজন নিয়ে আমরা এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে কোনও আলোচনা করেনি। জুলাইয়ের আগে তার কোন সম্ভাবনাও দেখছি না। আমি শুধু এটুকু বলতে পারি, এই মুহূর্তে এই নিয়ে কোনও আলোচনা হওয়ার সম্ভাবনা নেই।’

করোনা আবহে গত বছর আইপিএল হয়েছিল সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে৷ মরু শহরে নির্বঘ্নেই শেষ হয়েছিল ২০২০ আইপিএল৷ কিন্তু এবার ঝুঁকি নিয়ে ঘরের মাঠে টুর্নামেন্টের আয়োজন করে বিসিসিআই৷ হোম-অ্যাওয়ে পদ্ধতিতে না-গিয়ে গত মরশুমের মতোই টুর্নামেন্ট শুরু করেছিল বোর্ড৷ দেশের ছ’টি শহরে চলছিল আইপিএলের চতুর্দশ আইপিএলের ম্যাচ গুলি৷ কিন্তু প্রথম লেগ শেষ হওয়ার পরই গোল বাঁধে৷ বায়ো-বাবলে মধ্যে থেকেও একাধিক ফ্র্যাঞ্চাইজির একাধিক ক্রিকেটার এবং সাপোর্ট স্টাফ করোনা আক্রান্ত হওয়ায় ৪ মে আইপিএল স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিসিআই৷

৫২ দিনের টুর্নামেন্টে মাত্র ২৪ দিন হয়েছিল৷ ৬০টি ম্যাচের মধ্যে হয়েছে মাত্র ২৯টি৷ এই টুর্নামেন্টে শেষ করার জন্য আন্তর্জাতিক ওপেন উইন্ডো খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে বিসিসিআই৷ কিন্তু এখনও কোনও সুরাহা হয়নি৷ টুর্নামেন্ট শেষ করতে না-পারলে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা ক্ষতি হবে বিসিসিআই-এর৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.