ঢাকা: এক দশক পর ফের পাকিস্তানের মাটিতে হচ্ছে দ্বি-পাক্ষিক টেস্ট সিরিজ৷ শ্রীলঙ্কাই প্রথম দল যারা জঙ্গিহানার পর পাকিস্তানে টেস্ট সিরিজ খেলেছে৷ ১১ ডিসেম্বর থেকে রাওয়ালপিন্ডিতে শুরু হয়েছে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্ট৷ শ্রীলঙ্কার পর পাকিস্তানে খেলতে যাবে বাংলাদেশ৷ কিন্তু পাকিস্তানে খেলতে যাওয়ার জন্য কোনও ক্রিকেটারকে চাপ দেবে না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড৷

নিরাপত্তা সুনিশ্চিত হলেও পাক সফরে যাওয়ার জন্য কোনও ক্রিকেটারকে চাপ দেওয়া হবে না। রবিবার এমনই জানিয়ে দিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান। আগামী বছরের শুরুতেই পাকিস্তান সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ৷ পাকিস্তানের মাটিতে দু’টি টেস্ট ও তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ খেলার কথা বাংলাদেশের৷ তবে পাক সফরে সিলমোহর দেওয়ার আগে নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে চাই বিসিবি৷

বিসিবি প্রেসিডেন্টের মতে, ‘আমরা কোনও ক্রিকেটারকে পাকিস্তান যাওয়ার জন্য চাপ দিতে পারি না। কোনও ক্রিকেটার যদি যেতে না চায়, তাহলে সে যাবে না। বোর্ডের তরফ থেকে কোনও ক্রিকেটারকে পাকিস্তানে খেলতে যেতে বাধ্য করা হবে না।’

২০০৯ লাহোরে শ্রীলঙ্কা টিম বাসে জঙ্গিহানার পর পাকিস্তানে মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল আইসিসি৷ কিন্তু দীর্ঘ ১০ বছর পর ফের মাটিতে টেস্ট সিরিজ খেলতে যায় সেই শ্রীলঙ্কাই৷ আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের লড়াইয়ে রাওয়ালপিন্ডিতে রবিবার শেষ হয় পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে সিরিজের প্রথম টেস্ট৷ ১৯ ডিসেম্বর থেকে করাচিতে শুরু হবে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট।

এর পরই পাকিস্তানে জাতীয় দল পাঠানোর কথা ভাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড৷ চলতি বছরেই মহিলাদের জাতীয় দল ও অনূর্ধ্ব-১৬ দলকে পাকিস্তানে খেলতে পাঠায় বিসিবি। নাজমুল হাসান বলেন, ‘আমরা সরকারের কাছে অনুরোধ করেছি পাকিস্তান সিরিজের জন্য নিরাপত্তার নিশ্চয়তা পাওয়া যাবে কি না, তা দেখে নিতে আমাদের দু’টো দল আগেই পাকিস্তানে গিয়েছিল৷ জাতীয় দলের জন্য এখনও নিরাপত্তার ছাড়পত্র পাওয়া যায়নি। নিরাপত্তার বিষয়টি সুনিশ্চিত হলেই পাক সফরের অনুমতি দেওয়া হবে৷’

যদিও নিরাপত্তার বিষয়ে ক্রিকেটারদের মতামতকে গুরুত্ব দেওয়া হবে বলেও জানান বিসিবি প্রেসিডেন্ট৷ তিনি বলেন, ‘নিরাপত্তা নিয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর ক্রিকেটারদের মতামত নেওয়া হবে৷ চূড়ান্ত। কোন কোন ক্রিকেটার যেতে চায় না, বোর্ড জানতে চাই৷ এ সব নিয়ে আগামী চার-পাঁচ দিনের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে৷’

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও