মিউনিখ: বুন্দেসলিগা নিশ্চিত হয়েছে আগেই। এবার বায়ার্ন লেভারকুসেনকে হারিয়ে জার্মান কাপও ধরে রাখল বায়ার্ন মিউনিখ। সেইসঙ্গে টানা দ্বিতীয়বারের জন্য ‘ডোমেস্টিক ডাবল’ জিতে নিল বাভারিয়ানরা। সবমিলিয়ে ১৩ বার। শনিবাসরীয় ফাইনালে বায়ার্ন লেভারকুসেনকে ৪-২ গোলে হারিয়ে দর্শকহীন গ্যালারির সামনেই উচ্ছ্বাসে মাতলেন লেওয়ানদোস্কিরা। এদিনের ফাইনালে জোড়া গোল এল পোলিশ স্ট্রাইকারের পা থেকে। বাকি দু’টি গোল দাভিদ আলাবা এবং সার্জ ন্যাবরির।

আগামী মরশুমে অল্পের জন্য চ্যাম্পিয়ন্স লিগের যোগ্যতা অর্জনে ব্যর্থ লেভারকুসেন এদিন চলতি মরশুমে হান্স ফ্লিকের দলের দ্বিতীয় খেতাব আটকে দেওয়ার অপেক্ষায় ছিল। একইসঙ্গে ১৯৯৩ পর প্রথম ট্রফি জয়ের হাতছানি ছিল এদিন লেভারকুসেনের সামনে। কিন্তু প্রথমার্ধেই আলাবা এবং ন্যাবরির গোলে ব্যাকফুটে চলে যায় তারা। দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য জোড়া গোল করে তারা, কিন্তু তখন অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে।

১৬ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে সরাসরি বল জালে রাখেন দাভিদ আলাবা। আট মিনিট বাদে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ন্যাবরি। জোসুয়া কিমিচের ঠিকানা লেখা থ্রু ধরে কোনাকুনি শটে ২৪ মিনিটে বিপক্ষ গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন তিনি। প্রথমার্ধে দু’গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় বায়ার্ন। দ্বিতীয়ার্ধে গোলের খাতায় নাম তোলেন রবার্ট লেওয়ানদোস্কি। যদিও পোল্যান্ড স্ট্রাইকারের এই গোলটা বিপক্ষ গোলরক্ষকের ‘গিফট’ বলা যেতে পারে। ৫৯ মিনিটে একটি লং বল ধরে প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে একটি শট নেন লেওয়ানদোস্কি। শিক্ষানবিশী ঢং’য়ে সেই শট ফসকে বিপক্ষকে তৃতীয় গোলটি উপহার দেন লেভারকুসেন গোলরক্ষক।

৬৩ মিনিটে কর্নার থেকে বেন্ডারের গোল ম্যানুয়েল নুয়েরকে পরাস্ত করলে কিছুটা ম্যাচে ফেরে লেভারকুসেন। কিন্তু কোনওভাবেই বাভারিয়ানদের চাপে ফেলতে পারেনি তারা। উলটে ৮৯ মিনিটে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করে বিপক্ষের কফিনে চতুর্থ তথা শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন লেওয়ানদোস্কি। পরিবর্ত পেরিসিচের পাস থেকে নির্দ্বিধায় নিজের দ্বিতীয় গোলটি করে যান পোলিশ স্ট্রাইকার। অতিরিক্ত সময়ে হ্যান্ডবলের কারণে পেনাল্টি পায় লেভারকুসেন। স্পটকিক থেকে ব্যবধান কমলেও বায়ার্নের খেতাব জয়ের পথে তা কোনওভাবেই বাধা হয়নি।

২০ বারের জন্য জার্মান কাপ জিতে এবার বায়ার্নের লক্ষ্য অবশ্যই অগস্টে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং একইসঙ্গে ত্রিমুকুট জয়। জুপ হেইঙ্কেসের অধীনে ২০১৩ পর যা আর সম্ভব হয়নি।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব