কলকাতা: দূরপাল্লার সুপারফাস্ট ট্রেনগুলিতে যাতে স্লিপার ক্লাস তুলে না দেওয়া হয় তার জন্য অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিলেন সিপিএমের প্রাক্তন সাংসদ বাসুদেব আচারিয়া। সুপারফাস্ট ট্রেন গুলিতে স্লিপার ক্লাস তুলে দিয়ে সব কোচ এসি থ্রি টায়ারে রূপান্তরিত করার কথা ঘোষণা করছেন রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান বিকে যাদব। বাসুদেব আচারিয়া এর বিরোধিতা করার পাশাপাশি বিকে যাদবের কাছে চিঠি দিয়ে অনুরোধ জানিয়েছেন এমন পদক্ষেপ থেকে সরে আসার জন্য।

সম্প্রতি ভারতীয় রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান ঘোষণা করে জানিয়েছিলেন, দ্রুতগামী দূরপাল্লার ট্রেন গুলিতে সমস্ত কোচ এসি থ্রি টায়ার করে দেওয়া হবে। তার ওই বক্তব্য সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। সেই কথা উল্লেখ করে রেলের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির প্রাক্তন চেয়ারম্যান বাসুদেব আচারিয়া চিঠি লিখে জানিয়েছেন, এর ফলে যাত্রীদের স্লিপার ক্লাসের চেয়ে অনেক বেশি ভাড়া দিতে হবে এসি থ্রি টায়ার এর জন্য। প্রাক্তন সংসদের হিসেব অনুসারে প্রতিদিন প্রায় আড়াই কোটি মানুষ ট্রেনে যাতায়াত করে। যাদের ৮০ শতাংশ স্লিপারে যান। অর্থাৎ বেশিরভাগ শ্রমিক-কৃষক সাধারণ নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষ। এদের পক্ষে এসি থ্রি টায়ারের ব্যয় ভার বহন করা কঠিন হয়ে পড়বে।

পাশাপাশি প্রাক্তন সাংসদ রেল বোর্ডের চেয়ারম্যানকে দেওয়া চিঠিতে উল্লেখ করেছেন , আগামী বছর দেশের ১০৯টি রুটে ১৫০টি ট্রেন চালানোর দায়িত্ব বেসরকারি কর্পোরেট সংস্থাকে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। এরফলেও ভাড়া বৃদ্ধি হবে,তার ফলে রেলে যাতায়াত সাধারনের সাধ্যের বাইরে চলে যাবে। যেখানে লকডাউন এর ফলে বহু মানুষের চাকরি গিয়েছে আর্থিক অবনতি ঘটেছে এবং ৫০ শতাংশ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে গিয়েছে সেখানে তাদের পক্ষে রেলে যাতায়াতটা বিলাসবহুল না করার অনুরোধ জানানো হয়েছে। রেল যেভাবে এতদিন দায়িত্ব নিয়ে দেশের মানুষকে পরিষেবা দিয়েছে সেটা যেন রেল পালন করে।

দেশে এবং বিদেশের একাধিক সংবাদমাধ্যমে টানা দু'দশক ধরে কাজ করেছেন । বাংলাদেশ থেকে মুখোমুখি নবনীতা চৌধুরী I