স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির বিরুদ্ধে এবার পথে নামলেন উত্তর ২৪ পরগনার বারাকপুরের যুব কংগ্রেসের কর্মীরা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কুশপুতুল দাহ করে বিক্ষোভ দেখালেন যুব কংগ্রেস কর্মীরা।

শুক্রবারের পর শনিবার সকাল থেকেও উত্তপ্ত রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত। দুই ২৪ পরগনা, মুর্শিদাবাদ ও হাওড়ার বিভিন্ন এলাকায় চলে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ। নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির প্রতিবাদে শনিবার বারাকপুর স্টেশন থেকে বারাকপুর চিড়িয়া মোড় পর্যন্ত একটি মিছিল করে যুব কংগ্রেস। চিড়িয়ামোড়ে মিছিল আসার পর জমায়েত শুরু হয়। জমায়েতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কুশপুতুল দাহ করেন যুব কংগ্রেস কর্মীরা।

যুব কংগ্রেস কর্মীদের বক্তব্য, “নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ নিজেদের ইচ্ছামতো দেশ চালানোর চেষ্টা করছেন। আগামী দিনে দেশ ভাগ করে দেওয়ারও চক্রান্ত করছে বিজেপি।’ দেশের বেহাল আর্থিক অবস্থা থেকে নজর ঘোরাতেই উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এনআরসি সহ বিভিন্ন রকম ইস্যু তৈরি করছে কেন্দ্রীয় সরকার, এমনই অভিযোগ যুব কংগ্রেস নেতৃত্বের।

শনিবার সকালে যুব কংগ্রেসের জমায়েতের জেরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে বারাকপুরের চিড়িয়া মোড় চত্বর। পথ অবরোধ ও কুশপুতুল দাহ কর্মসূচির জেরে ব্যস্ততম রাস্তা বি টি রোডে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। পথে বেরিয়ে বিপাকে পড়েন নিত্যযাত্রীরা। স্কুলে যেতেও চূড়ান্ত সমস্যার সম্মুখীন হয় স্কুল পড়ুয়ারা। টিটাগড় থানার পুলিশ ঘটনস্থলে যায়। বিক্ষোভকারী যুব কংগ্রেস কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন পুলিশের কর্তারা। শেষমেশ অবরোধ সরিয়ে যানজট মুক্ত করে পুলিশ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।