নয়াদিল্লি: পাকিস্তানের সঙ্গে সবরকমের ক্রিকেটীয় সম্পর্ক বন্ধ করার ডাক দিলেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ। পুলওয়ামায় জঙ্গি নাশকতার জেরে ৪০ জন সিআরপিএফ জওয়ানের শহিদ হওয়ার ঘটনা প্রভাবিত করেছে ক্রিকেটের ময়দানকেও। ঘটনার রেশ ধরে আসন্ন বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচ বয়কটের দাবি উঠছে বিভিন্ন মহলে। যদিও এবিষয়ে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করতে সরকারের সিদ্ধান্তকেই অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা জানানো হয় বিসিসিআইয়ের তরফ থেকে। তবে এবিষয়ে কোনও সরকারি অবস্থান এখনও স্পষ্ট না হলেও আইনমন্ত্রীর জানিয়ে দিলেন পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কোনওরকম ক্রিকেট ম্যাচ না খেলাই সঠিক সিদ্ধান্ত হবে।

২০১৩ থেকে বন্ধ দু’দেশের দ্বিপাক্ষিক সিরিজ। আইসিসি’র কোনও টুর্নামেন্ট ছাড়া ক্রিকেটের এই মহারণ থেকে বিরত থাকেন অনুরাগীরা। ২০১৮ সেপ্টেম্বরে শেষবার এশিয়া কাপে মুখোমুখি হয়েছিল দুই দেশ। এরপর আগামী ১৬ জুন ম্যাঞ্চেস্টারে বিশ্বকাপের মঞ্চে দু’দেশের মুখোমুখি হয়ার কথা থাকলেও তা এখন বিশ বাঁও জলে। বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচ বয়কট নিয়ে সরব হয়েছেন হরভজন সিং। অপেক্ষা ছিল সরকারি সিদ্ধান্ত গ্রহণের। সেই সিদ্ধান্ত এখনও স্পষ্ট না হলেও বাইশ গজে ভারত-পাক নিয়ে তাঁর অবস্থান বুঝিয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী।

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে এদিন তিনি দাবি করেন, ‘ক্রিকেটীয় বিষয়ে আমি কোনও কথা বলতে চাইনা। পরিস্থিতি একেবারেই স্বাভাবিক নয়। কিন্তু বিশ্বকাপ যেহেতু আন্তর্জাতিকমানের একটি টুর্নামেন্ট তাই আইসিসি এবং বিসিসিআই নিরাপত্তার বিষয়টি খতিয়ে দেখেই এবিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে বলে আমার বিশ্বাস।’ তবে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করতে গিয়ে প্রসাদ বলেন, ‘নৃশংস জঙ্গি হামলার ঘটনায় ইমরান খানের তরফ থেকে কোনও শোকবার্তা পর্যন্ত এসে পৌঁছয়নি শহিদ জওয়ানদের জন্য। তাই আমার মতে ক্রিকেটীয় কোনওরকম সম্পর্কস্থাপনেও না বলার সময় এসেছে।’

এর আগে পুলওয়ামা ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে আইপিএল চেয়ারম্যান রাজীব শুক্লা জানান, ‘সন্ত্রাসবাদ বন্ধ না হওয়া অবধি পাকিস্তানের সঙ্গে কোনওরকম ক্রিকেটীয় সম্পর্ক স্থাপন করবে না ভারত।’ এপ্রসঙ্গে তার আরও সংযোজন, ‘ক্রিকেটকে সবসময় রাজনীতির ঊর্ধ্বে রাখাই শ্রেয়। কিন্তু পুলওয়ামার ঘটনা দু’দেশের ক্রীড়া সম্পর্ককেও ক্ষতিগ্রস্থ করেছে।’

তবে দু’দেশের রাজনৈতিক চাপান-উতোরের মাঝেও মঙ্গলবার শহিদ ভারতীয় জওয়ানদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে আইসিসি সিইও ডেভিড রিচার্ডস বলেন, ‘কাশ্মীরে জঙ্গি হামলায় ক্ষতিগ্রস্থদের আমাদের সহানুভূতি রয়েছে। আমাদের দল পরিবর্ত পরিস্থিতির উপর নজর রেখে চলেছে। কিন্তু বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ না-হওয়ার কোনও কারণ নেই। ক্রিকেট মানুষকে একত্রিত করার ক্ষমতা রাখে।’