নয়াদিল্লি : এবার ভারতে নিজেদের শাখা থেকে কর্মী ছাঁটাই শুরু করল ব্যান হয়ে যাওয়া চিনা অ্যাপ সংস্থাগুলি। এর মধ্যে রয়েছে আলিবাবা গ্রুপের ইউসি ওয়েব ও ইউসি ব্রাউজার। ইউসি ব্রাউজার, ভি মেট শর্ট ভিডিও অ্যাপ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইউসি ওয়েভ ১৫ই জুলাই একটি নোটিশ দিয়ে তাদের ভারতের শাখা অফিসের কর্মীদের ছাঁটাই করার ঘোষণা করে।

সূত্রের খবর এই কোম্পানিগুলির ভারতীয় শাখা বন্ধ হতে চলেছে। প্রায় ১২ বছর আগে ভারতে এই কোম্পানিগুলি ব্যবসা করতে শুরু করে। উল্লেখ্য ইউসি ব্রাউজারের গুরগাঁওয়ের অফিসে প্রায় একশো জন কর্মী রয়েছেন। সাম্প্রতিক পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে তাঁরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে খবর। আচমকা অ্যাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা হওয়ার ফলে চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন তাঁরা বলে জানানো হয়েছে ওই নোটিশে।

ফলে ভারতীয় শাখা অফিস বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন তাঁরা। ভারতে ইউসি ব্রাউজারের মাসিক ১৩০ মিলিয়ন সক্রিয় ব্যবহারকারী ছিল বলে সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। অন্যদিকে, আরেকটি ব্যান হয়ে যাওয়া ই কমার্স সংস্থা ক্লাব ফ্যাক্টরি ভারতীয় বিক্রেতাদের সঙ্গে আর্থিক লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছে, তারাও আর্থিক ক্ষতির মুখে রয়েছে বলে জানানো হয়েছে সংস্থার পক্ষ থেকে।

২৯শে জুন রাতারাতি ৫৯টি চিনা অ্যাপ বাতিল করে কেন্দ্র। তার পর থেকেই কেন্দ্রের পদক্ষেপ নিয়ে নিজেদের মধ্য আলোচনা শুরু করে সংস্থাগুলি। কেন্দ্রের তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রক এই সংস্থাগুলিকে তিন সপ্তাহের মধ্যে তাঁদের দেওয়া প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

কীভাবে এই সংস্থাগুলি কাজ করত, এই সংস্থাগুলির অর্থনৈতিক পরিকাঠামো কী, তাদের তথ্য রাখার প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে চেয়ে প্রশ্ন পাঠিয়েছে কেন্দ্র। অবৈধ ও অননুমোদিত তথ্য রাখা হত এই সব সংস্থাগুলিতে, এমনই অভিযোগ কেন্দ্রের। সংস্থাগুলি সেই অভিযোগ খারিজ করার স্বপক্ষে কি যুক্তি দিচ্ছে, তা খতিয়ে দেখা হবে। ৫০-৭০টি রিপোর্ট এই সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে তৈরি করা হয়েছে বলে খবর।

এর আগে, চিনের নাম না করে ও সীমান্তে সংঘর্ষের উল্লেখ না করেই চিনা অ্যাপ বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্র। যাতে বাইটডান্সের মতো কোম্পানিগুলি সমস্যায় পড়েছে। তবে উল্লেখ্য যে সব ফোনে ইতিমধ্যেই টিকটক ডাউনলোড করা হয়েছে, তা এখন সক্রিয়। সোমবারই টিকটক সহ ৫৯টি চিনা অ্যাপকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে কেন্দ্র সরকার।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।