তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: বিদ্যাসাগর কলেজের বিধান সরণী ক্যাম্পাসে বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙ্গার প্রতিবাদে পথে নামল তৃণমূল। বুধবার বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটির লটিয়াবনী অঞ্চল তৃণমূলের উদ্যোগে এই ঘটনার প্রতিবাদে এলাকায় মিছিল সংগঠিত হয়।

এরপর তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর চেয়ারের উপর বিদ্যাসাগরের ছবি রেখে, টায়ার জ্বালিয়ে দীর্ঘক্ষণ পথ অবরোধ করেন। এই ঘটনায় দিনের ব্যস্ততম সময়ে গুরুত্বপূর্ণ এই জাতীয় সড়ক অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। আটকে পড়ে বহু যাত্রীবাহী ও পণ্য বোঝাই যানবাহন। সমস্যায় পড়েন অসংখ্য সাধারণ মানুষ।

লটিয়াবনী অঞ্চল তৃণমূলের সভাপতি জিতেন গরাইয়ের নেতৃত্বে এই পথ অবরোধ কর্মসূচী থেকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙ্গার ঘটনায় বিজেপিকে সরাসরি দায়ি করা হয়। এই ঘটনায় দোষীদেরও উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে সরব হন আন্দোলনকারী তৃণমূল নেতৃত্ব।

লটিয়াবনী অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি জীতেন গরাই বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে ‘দেশের সবচেয়ে বড় গুণ্ডা, ডাকাত’ অভিহিত করেন৷ বলেন, মঙ্গলবার উনি নির্বাচনী রোড শো-এর নামে বাংলাকে একদিকে অপমান অন্যদিকে বাংলার সংস্কৃতিকে ধ্বংস করেছেন। বিজেপি কর্মীরা কলকাতার বিদ্যাসাগর কলেজে আগুন লাগানোর পাশাপাশি প্রাতঃস্মরণীয় মনিষী বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙ্গেছে। এই ঘটনার প্রতিবাদে সমস্ত তৃণমূল কর্মী একত্রিত হয়ে পথে নেমেছে। ওই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ তারা জানাচ্ছেন বলে জানান, লটিয়াবনী অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি জিতেন গড়াই।