তিমিরকান্তি পতি (বাঁকুড়া); নিম্নচাপের কারণে দু’দিনের টানা অকাল বৃষ্টিতে বাঁকুড়া জেলা জুড়ে ধান ও সব্জী চাষে ব্যাপক ক্ষতির সম্ভাবনা। এক দিকে এই বছর বর্ষায় পর্যাপ্ত বৃষ্টি না হওয়ায় একটা বড় অংশে ধান চাষ হয়নি। তার পরেও যেটুকু চাষ হয়েছিল এই অকাল বৃষ্টিতে তাও নষ্টের মুখে। বৃহস্পতিবার সকালে বাঁকুড়া-২ ব্লকের আলঠ্যা গ্রামে গিয়ে দেখা গেল, ধান ও সব্জীর চাষের জমিতে জল জমে আছে। জমিতে কেটে রাখা ধানও জলে ডুবে আছে। এই অবস্থায় আগামী দিনে কিভাবে চাষের খরচ মিটিয়ে সংসার চালাবেন ভেবে পাচ্ছেননা চাষীরা।

মহাজনের কাছে ঋণ নিয়ে ধান চাষ করেছিলেন ওই এলাকার সিংহভাগ কৃষক। কিন্তু বৃষ্টিতে মাঠের ধান মাঠেই নষ্ট হতে বসেছে। এই অবস্থায় কি করে ওই ঋণ শোধ করবেন ভেবে পাচ্ছেন না বলে জানান লালমোহন ভুঁই নামে এক কৃষক। তিনি আরও বলেন, জমিতে জল জমে আছে। চেষ্টা করছি ওই জমা জল বের করার। তাতেও সব্জী বা ধান চাষে কোন কাজে আসবে বলে তিনি মনে করছেন না বলে জানান।

উত্তম শীট নামে আর কৃষক বলেন, এই বছর অনাবৃষ্টির কারণে সব জমিতে চাষ করা সম্ভব হয়নি। যেটুকু জমিতে চাষ হয়েছিল এই দু’দিনের বৃষ্টিতে তা নষ্ট হতে বসেছে। উৎপাদিত সব্জী জমিতে পচে যাওয়ার পাশাপাশি কেটে রাখা ধানেও অঙ্কুর হতে বসেছে। ফলে বাজারে ওই ধান বিক্রিও হবেনা। ফলে সব কৃষকের মাথায় হাত পড়েছে। হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, এদিন সকাল আটটা পর্যন্ত বাঁকুড়া জেলায় ৫২.৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এর পর আরো বৃষ্টি হলে ধান ও সব্জী চাষে ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন অনেকেই।

এবিষয়ে বাঁকুড়া-২ ব্লক কৃষি আধিকারিক প্রসেনজিৎ বর্মন বলেন, ধানের জমিতে জল না জমে থাকলে ক্ষতির সম্ভাবনা নেই। তবে জল জমে থাকলে ক্ষতি হলেও হতে পারে। একই সঙ্গে ২৪ থেকে ৪০ ঘন্টা সব্জী জমিতে জল জমে থাকলে ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে। তবে এখনো সেই পরিস্থিতি আসেনি বলেই তিনি জানান।