নয়াদিল্লি: দেশ জুড়ে চলছে দু’দিনের ব্যাংক ধর্মঘট। শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে সেই ধর্মঘট। যার ব্যাপক প্রভাব পড়েছে দেশ জুড়ে। দেশের প্রায় সব ব্যাংকেই এই ধর্মঘট চলছে।

ধর্মঘটের জেরে বেশির ভাগ ব্যাংকের ব্রাঞ্চই বন্ধ। তার ফলে কয়েক লক্ষ চেক আটকে আছে। মুম্বই, চেন্নাই ও দিল্লিতে অন্তত ৩১ লক্ষ চেক আটকে আছে। ২৩০০০ কোটি টাকার চেক আটকে আছে বলে জানা গিয়েছে। এছাড়া টাকা তোলা বা জমা করা যাচ্ছে না।

আজ থেকে শুরু হয়েছে দেশজুড়ে দুদিনের ব্যাংক ধর্মঘট৷ পাঁচদিনের কর্মদিবস, বেতন বৃদ্ধি দাবি সহ বেশ কিছু দাবিতে ধর্মঘট ডেকেছেন ব্যাংকের কর্মী ও ইউনিয়নের নয়টি ইউনিয়নের যৌথমঞ্চ ইউনাইটেড ফোরাম এফ ব্যাংক ইউনিয়নস (এইএফবিইউ)। ফলে ব্যাংক পরিষেবা ব্যহত হয়েছে ৷

কলকাতার পাশাপাশি জেলা গুলিতেও ধর্মঘটের খবর আসতে শুরু করেছে ৷ শুক্র এবং শনিবার দুদিন ধর্মঘট তারপরের দিন রবিবার ছুটির দিন৷ ফলে সোমবারের আগে স্বাভাবিক ব্যাংক পরিষেবা পাওয়া যাবে না৷ অল ইন্ডিয়া ব্যাংক এমপ্লয়িজ অ্যাসেসিয়েশনের সভাপতি রাজেন নাগার জানিয়েছেন, কলকাতা পাশাপাশি গোটা দেশে এই ধর্মঘটের ব্যাপক সাড়া মিলেছে ৷ এটিএমের নিরাপত্তারক্ষীরাও তাদের ইউনিয়নের সদস্য হওয়ায় এই ধর্মঘটের প্রভাব এটিএমগুলিতে দেখা যাচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন৷

প্রসঙ্গত এই বৃহস্পতিবার ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সংগঠন আইবিএ-র সঙ্গে ইউএফবিইউ বৈঠকে বসলেও তা থেকে সমাধান সূত্র না বের হওয়ায় ধর্মঘটে অটল থাকার সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা ৷ এর আগে সোমবার তাদের সঙ্গে লেবার কমিশনারের বৈঠক হলেও সেটিও ব্যর্থ হয়েছিল ৷ ১৭ ফেব্রুয়ারি লেবার কমিশনারের সঙ্গে তাদের পরবর্তী বৈঠক রয়েছে৷