আগরতলা: রাতের অন্ধকারে আগরতলা শহরেই তাঁর পেটে ও বুকে মদের বোতল ভেঙে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সেই হামলায় গুরুতর জখম হয়েছিলেন ইউকো ব্যাংকের ধর্মনগর শাখার ম্যানেজার বোধিসত্ত্ব দাস। পরে তাঁকে চিকিৎসার জন্য কলকাতায় আনা হয়। সেখানেই তাঁর মৃত্যু হল। গত ৪ অগস্ট আক্রান্ত হয়েছিলেন বোধিসত্ত্ব। এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই রাজধানী শহরে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। সম্প্রতি চিকিৎসকদের আক্রান্ত হওয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে। হাসপাতাল থেকে বের করে নৃশংসভাবে পেটানো হয়েছিল সেবার।

পরপর দুষ্কৃতী হামলা ও পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ ঘিরে সরগরম ত্রিপুরা। গত দুদিন ধরে শাসক বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে কিছু এলাকা উত্তপ্ত। এতে মৃত্যু হয়েছে দু জনের। বেশ কিছু বাড়ি ও দোকান ভাঙচুর হয়েছে। এরই মাঝে কলকাতা থেকে এসেছে ব্যাংক ম্যানেজার বোধিসত্ত্ব দাসের মৃত্যুর সংবাদ।

গত ৪ অগস্ট রাতে আগরতলার জ্যাকসন গেট এলাকায় স্কুটি চালিয়ে আসছিলেন বোধিসত্ত্ব। ফেরার আগে তাঁর মায়ের সঙ্গে কথাও হয়েছিল। অনেক রাতেও তিনি ফিরে না আসায় আত্মীয়দের চিন্তা বাড়ে। এরপরেই পুলিশ খবর দেয় আগরতলার রাস্তায় তাঁকে গুরুতর জখম অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে। জিবি হাসপাতালে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয়। জানা যায় মদের বোতল ভেঙে একাধিকবার তাঁকে আঘাত করা হয়। রাস্তার উপরেই রক্তাক্ত অবস্থায় পড়েছিলেন বোধিসত্ত্ব। কলকাতায় তাঁকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। দুষ্কৃতিদের গ্রেফতারে তৎপরতা শুরু করেছে পুলিশ।

বিরোধী সিপিএম ও কংগ্রেসের অভিযোগ, লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই রাজ্যের আইন শৃঙ্খলার পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। তবে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব জানিয়েছেন সরকার কড়া হাতে দুষ্কৃতিদের রুখবে।