ফাইল ছবি

বারাসত: বিএসএফের উপর হামলা চালাল বাংলাদেশি দুষ্কৃতীরা। চোরাচালানে বাধা দেওয়ায় এভাবে বিএসএফের উপর হামলার অভিযোগ। দুষ্কৃতীদের হামলায় জখম হন তিন জওয়ান। যদিও স্থানীয় হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে হঠাত হামলায় দুষ্কৃতীদের লক্ষ্য করে পাল্টা গুলি ছোঁড়া হয়। আর তাতে বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতীও জখম হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে বিএসএফ আট কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে। জানা গিয়েছে, গত ৩ জুলাই বাগদার বাঁশঘাটা এলাকার সীমান্তে ১০৭ নম্বর ব্যাটালিয়নের জওয়ানরা টহল দিচ্ছিলেন। সেই সময় বাংলাদেশ থেকে আসা দুষ্কৃতীরা সীমানা টপকে ঢোকার চেষ্টা করে।

জওয়ানরা বাধা দিলে তাঁদের উপর হামলা চালায়। আত্মরক্ষায় জওয়ানরা প্রথমে এক রাউন্ড গুলি ছোঁড়েন। দুষ্কৃতীরা প্রথমে পালিয়ে গেলেও কিছু সময় পর দলবল নিয়ে হামলা চালানোর চেষ্টা করে। তখন জওয়ানরা গুলি চালান।

অন্যদিকে, গত কয়েকদিন আগে আন্তর্জাতিক সীমান্ত লাগোয়া এলাকা থেকে ভারতীয় কৃষকদের অপহরণের ঘটনায় অভিযুক্ত হয়েছিল বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ। গত বছর কোচবিহারের কুচলিবাড়িতে এমনই ঘটনা ঘটেছিল।

গত কয়েকদিন আগে মুর্শিদাবাদ জেলার রানিনগরের বামনাবাদে দুই ভারতীয় কৃষককে তুলে নিয়ে যাওয়ায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয়। কিন্তু কি কারণে এই ঘটনা ঘটে? কেন এমন সীমান্ত পেরিয়ে ভারতীয় ভুখন্ডে ঢুকে পড়ে বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনী।

অভিযোগ, সীমান্ত থেকে ভারতের ভূখণ্ডে প্রায় ১ কিলোমিটার ঢুকে দুজনকে তুলে নিয়ে যায় বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনীর জওয়ানরা। এরপরেই দীর্ঘ আলাপ-আলোচনা শুরু হয়। দুই’দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনি বিএসএফ এবং বিজিবি’র তরফে হয় ফ্ল্যাগ মিটিং। অবশেষে দীর্ঘ আলাপ-আলোচনার পর দুই কৃষককে ছাড়া হয়।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ