দুবাই: বায়ো-সিকিওর পরিবেশে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের মধ্যে দিয়ে আগামী মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরছে বাইশ গজে। ইউরোপের পরিস্থিতি কিছুটা আয়ত্তে আসায় সেখানে ক্রিকেট ফিরলেও উপমহাদেশের মাটি এখনও ক্রিকেট ফেরানোর জন্য উপযুক্ত হয়ে ওঠেনি এতটুকু। স্বাভাবিক কারণেই বাতিল হয়ে চলেছে একের পর আন্তর্জাতিক দ্বিপাক্ষিক সিরিজ।

মঙ্গলবার অগস্ট-সেপ্টেম্বরে নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর স্থগিত ঘোষণা হওয়ার পর বুধবার উপমহাদেশের মাটিতে স্থগিত হয়ে গেল আরও এক দ্বিপাক্ষিক সিরিজ। জুলাইয়ে বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার কথা থাকলেও সাম্প্রতিক পরিস্থিতি বিচার করে বুধবার ওই সফরে স্থগিতাদেশ জারি করল বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা। ‘আগামী মাসে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার কথা থাকলেও আপাতত তা স্থগিত করা হল।’ টুইটার হ্যান্ডেলে বুধবার জানিয়েছে আইসিসি।

জুলাইয়ে দ্বীপরাষ্ট্রের মাটিতে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলার কথা ছিল মোমিনুলদের। কিন্তু সম্প্রতি ৩ জন বাংলাদেশি ক্রিকেটার সম্প্রতি আক্রান্ত হয়েছেন মারণ করোনা ভাইরাসে। তাছাড়া ইংল্যান্ড উড়ে যাওয়ার আগে প্রতিবেশী পাকিস্তানের ১০ জন ক্রিকেটারের শরীরে ধরা পড়েছে সংক্রমণ। সবমিলিয়ে আপদকালীন পরিস্থিতিতে আপাতত বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফর অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য পিছিয়ে দিল আইসিসি।

উল্লেখ্য, করোনা আবহে মঙ্গলবার স্থগিত হয়ে যায় নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর। আগামী অগস্ট-সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ সফরে গিয়ে দু’ম্যাচের টেস্ট সিরিজে অংশগ্রহণ করার কথা ছিল কেন উইলিয়ামসন অ্যান্ড কোম্পানির। যা আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অন্তর্গত। কিন্তু করোনা উদ্বেগের মধ্যে আইসিসি নির্দেশিত নয়া কিছু নির্দেশিকার কথা মাথায় রেখে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে গিয়েছে সেই সিরিজ।

জানা গিয়েছে, দু’দেশের ক্রিকেট বোর্ড সিরিজ আয়োজনের উপযুক্ত সময় এবং দিনক্ষণ বাছাই করে পুনরায় সিরিজের সূচি প্রকাশ করবে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার নিজামুদ্দিন চৌধুরি এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘কোভিড১৯’র এখনও যা দাপট রয়েছে তাতে সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে অগস্টে ক্রিকেট সিরিজ আয়োজন করা ভীষণ চ্যালেঞ্জিং। তাই এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে ক্রিকেটার, সাপোর্ট স্টাফ এবং সিরিজের সঙ্গে যুক্ত স্টকহোল্ডারদের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে আমরা কোনও ঝুঁকি নিতে চাই না। সবদিক খতিয়ে দেখে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড এবং নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড মনে করেছে সিরিজটা পিছিয়ে দেওয়াই উপযুক্ত কাজ হবে।।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।