ক্যানবেরা ও ঢাকা: বাড়িতে বসেই জঙ্গিদের সঙ্গে রীতিমতো যোগাযোগ ঘটিয়ে ফেলেছিল দুই বোন সোমা ও সুমনা৷ কী করে ছুরি নিয়ে ঝাঁপিয়ে খুন করতে হয় সেই বিষয়ে অনলাইনে মিলেছিল প্রশিক্ষণ৷ পরে সোমা অস্ট্রেলিয়ায় পড়তে যাওয়ার ইচ্ছা জানায় পরিবারে৷ অনেক খরচ সামাল দিয়ে তাকে পাঠানো হয়েছিল৷

বিদেশে গিয়ে প্রকাশ্যেই এক ব্যক্তিতে খুন করতে গিয়েছিল সোমা৷ ধরা পড়ে যায়৷ এখন তাকে ৪২ বছরের কারাদণ্ডের সাজা দিয়েছে সেই দেশের সরকার৷ মেলবোর্নে সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতি এই ঘটনাকে ঠাণ্ডা মাথায় খুনের চেষ্টা হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন৷ নিয়মানুযায়ী সোমাকে কমপক্ষে ৩১ বছর ছয় মাস জেলে থাকতে হবে।

খুনের চেষ্টার ঘটনায় আদালতে কোনওরকম দুঃখ প্রকাশ করেনি বাংলাদেশি নাগরিক মোমেনা সোমা। এমনকি জিহাদি কার্যক্রম থেকে সরে আসতে চায়না বলেই জানিয়ে দেয়৷ তদন্তে উঠে এসেছে, সোশ্যাল সাইটে লাগাতার সন্ত্রাসবাদ সংক্রান্ত ভিডিও ও আল কায়েদা-আইএসের মতো জঙ্গি গোষ্ঠীর যোগ ছিল সোমার৷ এতেই তার মানসিকতার পরিবর্তন হয়েছে৷

গত বছর ৯ ফেব্রুয়ারির ঘটনা৷ অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার ৯ দিন পর গত বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি নিউ সাউথ ওয়েলসে রজার সিংগারাভেলু নামের এক ব্যক্তিকে হত্যার উদ্দেশ্যে ছুরি নিয়ে হামলা চালায় বাংলাদেশি নাগরিক মোমেনা সোমা। তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আহত হলেও প্রাণে বেঁচে যান রজার। এরপরেই সোমার সম্পর্কে দুই রাষ্ট্র তথ্য বিনিময় করেছে৷

সোমার সম্পর্কে অস্ট্রেলিয়া সরকারকে বিভিন্ন তথ্য পাঠিয়ে দিতে বাংলাদেশের জঙ্গি দমন শাখা সিটিটিসি অফিসাররা ঢাকার মিরপুরে তার বাড়িতে গিয়েছিলেন৷ সেখানেই ঘটে আরও এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা- সোমার বোন আসমাউল হুসনা সুমনা একটি ছুরি নিয়ে সেই অফিসারের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে হামলা চালায়৷ তাকেও হেফাজতে নিয়ে জেরা করছে ঢাকা পুলিশ৷ তদন্তে উঠে এসেছে দুই বোন লাগাতার জঙ্গি গোষ্ঠীর সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছিল৷

ঢাকায় কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগ সিটিটিসি ইউনিটের হাতে ধৃত সুমনা জানিয়েছে বাংলাদেশ থেকে আইএসে যোগ দেওয়া ফরেন ফাইটারদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল সোমার। সে আইএস নাম লিখিয়ে তুরস্ক হয়ে সিরিয়ায় যেতে চেয়েছিল। কিন্তু ঢাকায় থাকা তুরস্কের দূতাবাস ভিসা মঞ্জুর করেনি৷ এরপর অস্ট্রেলিয়ার একটি ইউনিভার্সিটি থেকে স্কলারশিপ নিয়ে সেখানে যায় সোমা৷ সেখানে গিয়েই নিজের ইচ্ছে মতো ছুরি নিয়ে হামলা চালিয়েছিল৷