ঢাকা: খালেদা জিয়ার আমলে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দুদের উপর নির্যাতনের মন্তব্য করেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্র অমিত শাহ। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতিও তিনি। অমিত শাহের মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানাল বিএনপি।

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, ভারতের সংসদে বলা হয়েছে- বিএনপি সরকারের আমলে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন করা হয়েছে। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। ঢাকার নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা জোর গলায় বলতে পারি– বিএনপির আমলে এখানে সংখ্যালঘুদের স্বার্থরক্ষা করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সংখ্যালঘুদের উপর আওয়ামী লীগের আমলে যতটা নির্যাতন হয়েছে, তা আর কখনও হয়নি। সোমবার ভারতের সংসদ- লোকসভায় বিতর্কিত নাগরিকত্ব বিল পাস হয়। সেই সময় ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, বাংলাদেশে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাবস্থায় সেখানে ব্যাপক হারে সংখ্যালঘু নির্যাতন হয়েছে। নির্যাতনের শিকার সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায় ভারতে পালিয়ে এসেছে। বিএনপি বাংলাদেশে ক্ষমতায় থাকাকালীন কোনওরকম সংখ্যা নির্যাতন হয়নি বলেই দাবি করেছেন মির্জা ফখরুল। সংসদে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হয় সোমবার। এতে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী দেশগুলি থেকে আসা হিন্দুদের নাগরিক করা হবে।

বিলটির প্রতিবাদে গত রাত থেকেই উত্তপ্ত ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চল এলাকা। মঙ্গলবার অসমে পালিত হচ্ছে নাগরিকত্ব সংশোধনীর বিরুদ্ধে বনধ। উত্তর পূর্ব ভারতের বিভিন্ন রাজ্যেও ছড়িয়েছে ক্ষোভ। বাংলাদেশের সীমান্ত লাগোয়া ভারতের রাজ্য হল পশ্চিমবঙ্গ, অসম, মেঘালয়, মিজোরাম ও ত্রিপুরা।

তবে অ-বিজেপি শাসিত পশ্চিমবঙ্গ সরকার ইতিমধ্যেই এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের তীব্র বিরোধিতা করেছে। আর পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারের আনা নাগরিকত্ব সংশোধন আইন ও এনআরসি কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না।