ঢাকা: সময় এগিয়ে আসছে ততই বাড়ছে উদ্বেগ৷ কারণ ইসলামিক স্টেট জঙ্গি সংগঠন ও তাদের সহযোগীরা বাংলাদেশের বিভিন্ন মঠে হামলা চালাতে পারে এমনই আশঙ্কা তৈরি হয়েছে৷ তিন বছর আগে রমজান মাসে ভয়াবহ গুলশন জঙ্গি হামলার স্মৃতি নিয়েই নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে ধর্মীস্থানগুলি৷ শ্রীলংকার মতো আত্মঘাতী হামলা রুখতে তৈরি হয়েছে একাধিক নিরাপত্তা বলয়৷ গৌতম বুদ্ধের জন্ম জয়ন্তীর শোভাযাত্রায় থাকছে কড়া পাহারা৷ ১৮ মে দেশের প্রায় আড়াই হাজার বৌদ্ধ মন্দিরে বুদ্ধপূর্ণিমা উদযাপিত হবে।

পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. মহম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, বুদ্ধপূর্ণিমার নিরাপত্তা নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনও শঙ্কা নেই। নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুসংহত করার লক্ষ্যে এই সংক্রান্ত প্রতিটি বিষয় বিশ্লেষণ করে বৌদ্ধ মন্দিরের বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ঢাকায় পুলিশ সদর দফতরের বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সংক্রান্ত এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে এসব কথা বলেন তিনি। আইজিপি বলেন, বুদ্ধপূর্ণিমা নিয়ে কোনও গোষ্ঠী বা মহল যাতে গুজব বা বিভ্রান্তি ছড়াতে না পারে, সেজন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসমূহ সার্বক্ষণিক মনিটর করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

নিরাপত্তায় নিযুক্ত পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকে দায়িত্ব পালন এবং গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর জন্য সকল পুলিশ ইউনিটকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি বৌদ্ধ মন্দির পরিদর্শনের জন্য পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বুদ্ধপূর্ণিমাকে সামনে রেখে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চেকপোস্টের জন্য পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

নিরাপত্তার স্বার্থে ব্যাগ, পার্স, ভ্যানিটি ব্যাগ ইত্যাদি সাথে না আনার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে পূণ্যার্থীদের। বৌদ্ধ মন্দিরসমূহে সিসিটিভি ক্যামেরা ও অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্র স্থাপন এবং স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগের জন্য বৌদ্ধ ধর্মীয় নেতৃবৃন্দকে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারের মহাসচিব পি আর বড়ুয়া, বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনের নির্বাহী সভাপতি অশোক বড়ুয়া, বৌদ্ধ কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি এবং সংরক্ষিত মহিলা আসন ৯ এর সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা, বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের সহ-সভাপতি প্রমথ বড়ুয়া, বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমিতি ঢাকা অঞ্চলের সাধারণ সম্পাদক স্বপন বড়ুয়া চৌধুরী, বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনের জেনারেল সেক্রেটারি ভিক্ষু সুনন্দপ্রিয়, বাংলাদেশ বৌদ্ধ ধর্ম কল্যাণ ট্রাস্টের বোর্ড অবট্রাস্টি ডালিম কুমার বড়ুয়া উপস্থিত ছিলেন।