ঢাকা:  জন্মদিনের অনুষ্ঠানে এনার্জি ড্রিংকের সঙ্গে নেশা দ্রব্য মিশিয়ে অচেতন করে এক কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ। অভিযুক্ত ওই কিশোরীর চার বন্ধু। শুধু তাই নয়, ধর্ষণের পর ফেসবুকে সেই ভিডিও আপলোড করে দেয় অভিযুক্ত ওই চার যুবক। করে ফেসবুক লাইভও। যেখানে ভয়ঙ্কর এই ঘটনা ঘটানোর পর অভিযুক্তদের রীতিমত হাসতে দেখা যায়।

ধর্ষনের সেই ভিডিও আপলোড করে অভিযুক্ত ওই চার যুবক ফেসবুক লাইভে হাসতে হাসতে বলতে থাকে, হ্যালো ফ্রেন্ডস আগামীকাল হয়তো জেলে থাকবো, কারো সঙ্গে আর দেখা হবে না। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ভয়ঙ্কর এই ভিডিও গোটা দেশে ছড়িয়ে পরে। মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল। আর তা ভাইরাল হতেই গোটা দেশজুড়ে তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয়। রাতারাতি বাংলাদেশে ফেসবুক থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় ভয়ঙ্কর ওই ভিডিওটি।

বাংলাদেশ পুলিশ প্রশাসনের তরফেও কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, গত ১৫ জানুয়ারি রাতে এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটে। ঘটনাটি ঘটে গাজীপুরের শ্রীপুরের নয়নপুর এলাকায়। এদিকে ঘটনার পরপরই থানায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন নির্জাতিতা কিশোরীর মা। ঘটনার নয়দিন পর ময়মনসিংহের ত্রিশাল থেকে র‌্যাব প্রথমে তিনজন ও পরে একজনকে গ্রেফতার করে। এর আগে এই মামলায় জড়িত সন্দেহে আরও এক মহিলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ জুড়ে তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কড়া শাস্তির দাবি বাংলাদেশের মানুষের।