ঢাকা: যে যুবকের ফেসবুক পোস্ট ঘিরে বাংলাদেশের রংপুরে হিংসা ছড়িয়েছে, সেই যুবককে অবশেষে গ্রেফতার করা হল। ওই যুবকের একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে হিংসা ছড়ায়, যার জেরে ৩০টি ঘরে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটে। ধৃত যুবকের নাম টিটু রায়।

মঙ্গলবার ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই যুবকের ফেসবুক আইডি থেকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে রংপুরের পাগলাপীর সলেয়াশাহ ঠাকুরপাড়া এলাকায় হিন্দু বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার ঠাকুরপাড়ায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করতে এসে সাংবাদিকদের একথা জানিয়েছেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহম্মদ আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, ‘অভিযুক্ত টিটু রায়কে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।’ তবে কোথা থেকে এবং কখন তাকে গ্রেফতার করা হয় সে বিষয়ে বিস্তারিত জানাননি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, দেশে সব ধর্মের মানুষ নিরাপদে বসবাস করছে।

কিছুদিন আগে, টিটু রায়ের বিরুদ্ধে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননা করে পোস্ট করার অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে তার শাস্তির দাবিতে গত শুক্রবার রংপুরে এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। নামাজের পর কয়েকশ’ মানুষ সেখানে সমবেত হয়ে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় ওই সড়কের দু’পাশে শত শত যানবাহন আটকে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে বিক্ষোভকারীদের রাস্তা ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানায়। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বাধে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৫০ রাউন্ড টিয়ার গ্যাসের শেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এসময় পুলিশসহ আহত হন অন্তত ১৫ জন। পরে হাসপাতালে একজন মারা যান। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা ঠাকুরপাড়া গ্রামে ৮ থেকে ১০ হিন্দু বাড়িতে আগুন দেয় ও ভাঙচুর চালায়।

এ ঘটনায় পুলিশ পরে দুটি মামলা করে। ওই মামলায় এ পর্যন্ত একশ’ জনের বেশি গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

- Advertisement -