কলকাতা: বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিশেষ বৈঠকে তিস্তা প্রসঙ্গ নিয়ে তেমন কোনও জট খুলল না৷ পরে সাংবাদিকদের কাছে এই বিষয়টি নিয়ে এড়িয়ে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আজ শনিবার, মমতা-হাসিনা বৈঠকে অন্যান্য অনেক বিষয়ে আলোচনা হলেও জট কাটেনি তিস্তা জলবণ্টনের৷

শনিবার পশ্চিম বর্ধমানের কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে শেখ হাসিনাকে সাম্মানিক ডি.লিট প্রদান করা হয়৷ তারপর কলকাতায় ফিরে তাজ হোটেলে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে মিলিত হন হাসিনা ও মমতা। তাদের সৌজন্য সাক্ষাতে উঠে আসে দুই দেশের বিভিন্ন ইস্যু। কিন্তু তিস্তা জলবন্টন সংক্রান্ত ইস্যুটি ঝুলেই থাকল৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ভারত এবং বাংলাদেশ তথা দুই বাংলার মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে এবং থাকবেও৷ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক ও বাণিজ্য সম্প্রসারণ নিয়ে কথা বলেছি। আলোচনা হয়েছে সীমান্ত সমস্যা নিয়েও।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দু দিনের পশ্চিমবঙ্গ সফরে তিস্তা জলবণ্টন চুক্তির বিষয়ে আলোচনা গুরুত্ব পেয়েছিল৷ যদিও এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী আগেই তাঁর অবস্থান পরিষ্কার করেছেন৷ এর আগে দিল্লিতে শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনাতেই মমতা তিস্তার বদলে অন্য কোনও নদীর জল নিতে বাংলাদেশ সরকারের কাছে বিকল্প প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি৷ যদিও বাংলাদেশ সরকার চায় তিস্তার জল৷

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, শেখ হাসিনার সঙ্গে তার সম্পর্ক খুবেই সৌহার্দ্যপূর্ণ। দুই দেশের সীমান্ত কখনও পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশকে ভাগ করতে পারেনি৷