ঢাকা: সবাই দেখছেন, কিন্তু কারোর কিছু বলার নেই। একেবারে সিনেমার মতো দৃশ্য। কয়েকজন মিলে রামদা দিয়ে কোপাচ্ছে এক যুবককে। তার স্ত্রী বাধা দিতে যাচ্ছেন। কিন্তু কিছুই করার নেই। রক্তাক্ত যুবক নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। তার বুক-পেট-পিঠে পড়ছে রামদার কোপ। মোবাইল ও সিসিটিভি বন্দি সেই ছবি দেখে আতঙ্কিত বাংলাদেশ। পরপর কোপ মেরে পালিয়ে গেল দুষ্কৃতিরা।

ঘটনাস্থল বরগুনা সরকারি কলেজের সামনের রাস্তা। পরে সেখান থেকে রক্তাক্ত যুবককে নিয়ে কোনরকমে বরিশাল হাসপাতালে পৌঁছন তার স্ত্রী। সেখানেই প্রবল রক্তক্ষরণে মৃত্যু হয় ওই যুবকের। নিহতের নাম রিফাত শরীফ। জানা গিয়েছে স্ত্রীকে অনবরত উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করেছিলেন রিফাত। সেই রাগ থেকে স্থানীয় কয়েকজন প্রকাশ্যেই তাঁকে কুপিয়ে খুন করল।

সিসিটিভি ফুটেজ দেখে অপরাধীদের শনাক্ত করা গিয়েছে। তাদের খোঁজে নেমেছে পুলিশ। বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি আবীর মহম্মদ হোসেন বলেন, দুষ্কৃতিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, বিয়ের পর নয়ন নামের এক যুবক অনবরত রিফাতের স্ত্রী মিন্নিকে তার প্রেমিকা দাবি করে আপত্তিকর পোস্ট দিতে থাকে। সেই নয়ন ও তার সাগরেদরা মিলে এই খুন করেছে।

বাংলাদেশে প্রকাশ্যে কুপিয়ে খুন এর আগেও হয়েছে। কিন্তু তার বেশিরভাগই সংঘটিত করেছে বিভিন্ন ধর্মান্ধ কট্টরপন্থী ইসলামিক সংগঠন। তাদের লক্ষ্য মুক্তমনা বুদ্ধিজীবীরা। বিভিন্ন সময়ে সেই হামলার শিকার হয়েছেন একাধিক বুদ্ধিজীবী। তবে বরগুনার খুনের ঘটনায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে খুন করা হলেও এর পিছনে ব্যর্থ প্রেম রয়েছে বলেই সন্দেহ পুলিশের। কারণ অতি সম্প্রতি রিফাতের সঙ্গে মিন্নির বিয়ে হয়। তার পরেই মিন্নিকে নিয়ে অশ্লীল পোস্ট দেওয়া শুরু করে কয়েকজন।