ঢাকা: ভোর রাত থেকে দফায় দফায় গুলির লড়াই চলছিল সিরাজগঞ্জ জেলার উকিলপাড়া এলাকায়।অভিযান শেষ হয়েছে। চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উদ্ধার হয়েছে আগ্নেয়াস্ত্র।

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের উকিলপাড়ায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে একটি বাড়ি ঘিরে অভিযান চলে ভোর থেকে। ওই বাড়ির ভিতর থেকে গুলি চালানো হয়। সন্দেহ কোনও নিষিদ্ধ ইসলামিক গোষ্ঠীর ডেরা এটি।

উকিলপাড়ার ফজলুল হকের বাড়িতে ভোরে অভিযান চালায় র‌্যাব বাহিনি বাড়ির ভিতর থেকে গুলি চালানো হয়। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। দুপক্ষের গোলাগুলিতে হতাহত হয়নি। একতলা টিনশেডের ওই বাড়ি থেকে অস্ত্র ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে আটক ব্যক্তিদের নামপরিচয় জানা যায়নি।

র‌্যাবের আইন ও সংবাদমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ জালিয়েছেন, সম্প্রতি রাজশাহীর শাহ মখদুম এলাকা থেকে জঙ্গি সন্দেহে চার ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সিরাজগঞ্জের উকিলপাড়ার ফজলুল হকের বাড়িতে এই অভিযান চলে। তিনি জানান, আবদুল্লাহ নামের এক ব্যক্তি ওই বাড়িটির ভাড়াটে।

ধৃতরা কোন সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত তা এখনো স্পষ্ট নয়। মনে করা হচ্ছে জেএমবি বা নব্য জেএমবি জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে তাদের যোগ রয়েছে। বাংলাদেশে বিভিন্ন সময় যে নাশকতা ঘটানো হয়েছে বা যুক্তিবাদীদের খুনের ঘটনা ঘটেছে তাতে ইসলামিক স্টেট মদতপুষ্ট সংগঠনগুলির অস্তিত্ব প্রমাণ হয়েছে। এছাড়াও আল কায়েদা সংগঠনের শাখা হিসেবে আরও কয়েকটি গোষ্ঠী সক্রিয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.