নটিংহ্যাম: পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে ৩৮২ রান তাড়া করে ৩৩৩ রানে থেমে গেল বাংলাদেশ৷ অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৪৮ রানে ম্যাচ হারলেও বিশেষজ্ঞদের প্রশংসা আদায় করে নিলেন বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা৷ একই সঙ্গে এদিন ওয়ান ডে-তে তাদের সর্বোচ্চ স্কোর করল বাংলাদেশ৷ তবে শাকিব-মোতার্জাদের হারিয়ে ফের লিগ শীর্ষে চলে গেল অস্ট্রেলিয়া৷

ট্রেন্ট ব্রিজের বাইশ গজে ডেভিড ওয়ার্নারের বিধ্বংসী ইনিংসে ভর করে প্রাহাড়প্রমাণ রান তুলেছিল অস্ট্রেলিয়া৷ বাঁ-হাতি ওপেনারের ১৬৬ রানের দৌলতে পাঁচ উইকেটে ৩৮১ রান তোলে অস্ট্রেলিয়া৷ আগের ম্যাচে টনটনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে শাকিবরা ৩২২ রান তাড়া করে জয় পেলেও এদিন অজিদের কাছে হার মানতে হল বেঙ্গল টাইগার্সদের৷ মুশফিকুর রহিমের লড়াকু সেঞ্চুরি এবং তামিম ইকবাল ও মাহমুহদুল্লাহের হাফ-সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশ তিনশোর গণ্ডি টপকালেও তা যথেষ্ট ছিল না৷

রান তাড়া করতে গিয়ে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের৷ মাত্র ২৩ রানে সৌম্য সরকারের উইকেট হারায় তারা৷ কিন্তু দ্বিতীয় উইকেটে তামিম ও শাকিব আল হাসান ৭৯ রান যোগ করে দলের ভিত মজবুত করার চেষ্টা করে৷ আগের ম্যাচ সেঞ্চুরি করে দলকে জেতানো শাকিব এদিন ব্যক্তিগত ৪১ রানে ড্রেসিংরুমে ফেরার পর বাংলাদেশের আশা শেষ হয়ে যায়৷ কিন্তু মুশফিকুরের দুর্দান্ত লড়াইয়ে তিনশোর গণ্ডি টপকে যায় বাংলাদেশ৷ শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ৩৩৩ রান তোলে তারা৷ ওয়ান ডে ক্রিকেটে এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর৷ এর আগে ওভালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ৩৩০ রানই ছিল বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ওয়ান ডে স্কোর৷

ম্যাচ হারলেও বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের লড়াই মন জয় করে নেয়৷ শেষ পর্যন্ত ১০২ রানে অপরাজিত থাকেন মুশফিকুর৷ ৯৭ বলের ইনিংসে ৯টি বাউন্ডারি ও একটি ওভার বাউন্ডারি মারেন তিনি৷ ৫০ বলে পাঁচটি বাউন্ডারি ও তিনটি ছক্কা হাঁকিয়ে ৬৯ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন মাহমুহদল্লাহ৷ তামিমের সংগ্রহ ৬২৷ মিচেল স্টার্ক, কুলটার নাইল ও স্টওনিস দু’টি করে উইকেট নেন৷ ম্যাচের সেরা ওয়ার্নার৷

বিধ্বংসী ইনিংস খেলে ম্যাচের সেরা হন ওয়ার্নার৷ নির্বাসন কাটিয়ে জাতীয় দলে ফেরার পর থেকেই স্বপ্নের ফর্মে রয়েছেন ওয়ার্নার৷ বিশ্বকাপের মঞ্চে ব্যাটে জবাব দিতে যেন মুখিয়ে ছিলেন বাঁ-হাতি অজি ওপেনার৷ টনটনে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১০৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলার পর এদিন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দুরন্ত সেঞ্চুরি করেন ওয়ার্নার৷ বাংলাদেশ বোলারদের পিটিয়ে ১৬৬ রানের ইনিংস খেলেন তিনি৷ এছাড়া ৮৯ রান করেন উসমান খোয়াজা৷ আর ১০ বলে ৩২ রান করেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল৷

দু’টি সেঞ্চুরি-সহ ৪৪৭ রান করে এই বিশ্বকাপে সর্বাধিক রানের ক্ষেত্রে সবার উপরে চলে যান ওয়ার্নার৷মোট রানের ক্ষেত্রে ওয়ার্নারের পরে রয়েছেন ফিঞ্চ (৩৯৬), শাকিব (৩৮৪), রুট (৩৬৭) ও রোহিত (৩১৯)৷ চলতি বিশ্বকাপে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ক্ষেত্রেও এদিন অজি ক্যাপ্টেন ফিঞ্চের ১৫৩ রানকে এদিন টপকে যান ওয়ার্নার৷ বাংলাদেশকে হারিয়ে ৬ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে লিগ শীর্ষে অস্ট্রেলিয়া৷ অ্যারন ফিঞ্চদের পরের ম্যাচ মঙ্গলবার লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে৷ আর বাংলাদেশের পরের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান৷