ঢাকা: বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ফের বড়সড় চেহারা নিতে চলেছে। এর ফলে লকডাউন হতে পারে আবার। তবে এই পর্যায়ে লকডাউন বিভিন্ন ধরনের হবে। এমনই জানিয়েছেন বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, বিভিন্ন টাইপের লকডাউন আসবে। বিয়ের অনুষ্ঠান, পিকনিক, ধর্মীয় জমায়েত বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হবে। যেখানে জনসমাগম হয় সেসব জায়গায় রেস্ট্রিকশন আসতে পারে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় একদিনে শনাক্ত ৩ হাজার হাজার ৯০৮ জন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের সূত্রে খবর, এখনও পর্যন্ত সরকারি হিসাবে করোনা শনাক্ত ৫ লক্ষ ৯৫ হাজার ৭১৪ জন। মারা গেছেন ৮ হাজার ৯০৪ জন।

বাংলাদেশ স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, গত বছরে মে থেকে আগস্ট পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার বেড়েছিল। শীতের সময়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা থাকলেও রোগী শনাক্তের হার ছিল নিম্নমুখী। গত জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে সংক্রমণের হার কমতে শুরু করলেও আবার বাড়তে শুরু করেছে শনাক্তের হার। গত সাত মার্চ থেকে শনাক্তের হার মারাত্মক ঊর্ধ্বমুখী। গত পাঁচদিন ধরে দেশে দৈনিক শনাক্ত সাড়ে তিন হাজারের বেশি। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশ আবারও সংক্রমণের চূড়ার দিকে যাচ্ছে।

বাংলাদেশে করোনার পরিস্থিতি নিয়ে মহামারী বিশেষজ্ঞ ও রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ডা. মুশতাক হোসেন জানিয়েছেন, আমরা এখন শীর্ষের দিকে উঠছি।

বাংলাদেশে করোনায় গত সপ্তাহে মারা গেছেন ১৪১ জন। চলতি সপ্তাহে ২০১ জন। মৃত্যুহার বেড়েছে ৪২ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ২ দিনের সফরে সফরে শুক্রবারেই বাংলাদেশে গিয়েছিলেন। সেখানে তাঁর বক্তৃতায় উঠে আসে করোনার কথা। প্রধানমন্ত্রী জানান, আজ দুই দেশই একসঙ্গে অত্যন্ত দৃঢ় ভাবে এই মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াই করছে। বাংলাদেশকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করোনার টিকা দেওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে মোদী বলেন, ভারতে তৈরি টিকা বাংলাদেশের নাগরিকদের কাছে পৌঁছানোকে দায়িত্ব হিসেবে বিবেচনা করেই ভারত কাজ করছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।