ঢাকা: সৌদি আরবকে বাংলায় আরও বেশি বিনিয়োগের আহ্বান। এমনটাই জানিয়েছেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী মুস্তাফা কামাল। শেরে বাংলা নগরে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে নিজের কার্যালয়ে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত আব্দুল্লাহ এইচ এম আল মুতাইরি।

বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের সম্পর্কের ক্ষেত্রে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ‘অভূতপূর্ব গতি সঞ্চারিত হয়েছে’ মন্তব্য করে মুস্তফা কামাল বলেন, “এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সব চেয়ে ভালো বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ এবং অত্যন্ত আকর্ষণীয় প্রণোদনার সুযোগ গ্রহণের মাধ্যমে অধিক হারে মুনাফার সুযোগ রয়েছে বাংলাদেশে। দেশের বিদ্যুৎ, সৌরশক্তি, জ্বালানি, টেলিকমিউনিকেশন এবং তথ্যপ্রযুক্তি, পেট্রোকেমিক্যাল, ওষুধশিল্প, জাহাজ নির্মাণ এবং কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ মত বাংলাদেশ দেশের বিভিন্ন উদীয়মান খাতে বিনিয়োগের সুযোগ রয়েছে বলেও জানান অর্থমন্ত্রী।

আগামী অর্থবছরে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ২৫ শতাংশ অর্জনের আশাও সৌদি দূতকে দেখান মন্ত্রী।

রাষ্ট্রদূত আল মুতাইরি বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর তার দেশে বিভিন্ন উদ্দেশ্যে বিপুল সংখ্যক মানুষ যায়।

শুধু এই বছরেই ৮ হাজার ৩০০ জন সৌদি আরবে কাজ নিয়ে গেছেন বলে জানান তিনি। এছাড়া ৮০ হাজার ওমরা ভিসা এবং ১ লাখ ২৮ হাজার হজ ভিসা দেওয়ার কথাও তিনি বলেন।

আগামী ৭ মার্চ সৌদি আরবের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিষয়ক মন্ত্রী ও পরিকল্পনা মন্ত্রীর নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর করবেন বলে জানান আব্দুল্লাহ। মন্ত্রী বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থানের কথা উল্লেখ করে বলেন, “সৌদি আরবের বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে দুই হাজার একর জমি বরাদ্দ করেছি, যেগুলো বিনিয়োগকারীরা নিজস্ব চাহিদা মোতাবেক তারা ব্যবহার করতে পারবেন।”

সৌদি ও বাংলাদেশের বাণিজ্য ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১০০ কোটি ডলারে উন্নীত হওয়ার তথ্য জানিয়ে মুস্তফা কামাল বলেন, বিনিয়োগ বাড়িয়ে দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যের সুযোগগুলোর পুরোপুরি সদ্ব্যবহার করতে হবে।