ঢাকা: কট্টরপন্থী সংগঠনগুলি একের পর এক মুক্তমনাকে খুন করছিল৷ তার সঙ্গে টার্গেটে ছিলেন বিদেশি নাগরিকরা৷ বাংলাদেশে পরপর সংঘটিত হচ্ছিল সেই সব হামলা৷ তেমনই এক ঘটনায় ২০১২ সালে গুলি করে খুন করা হয় সৌদি আরবের দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ আল আলিকে৷ আলোড়ন ছড়ায়৷ সেই মামলায় দোষীর ফাঁসি কার্যকর হয়েছে৷

মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিতের নাম সাইফুল ইসলাম ওরফে মামুন। তার বাড়ি বাগেরহাটের শরণখোলা থানার মধ্য খোন্তাকাটা৷ রবিবার গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে তার ফাঁসি হয়৷

২০১২ সালের ৫ মার্চ গুলশনে গুলিবিদ্ধ হন সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ আল আলি। পরদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। খালাফ হত্যার ঘটনায় মামলা করে পুলিশ। ধরা পড়ে কয়েকজন৷ শুনানি শেষে ২০১৩ সালের ১৮ নভেম্বর হাইকোর্টের রায় সাইফুল ইসলামের মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকে। বাকিদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে আসামি সাইফুল ইসলামের করা আবেদন ২০১৮ সালের ৭ অক্টোবর খারিজ করে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।