যশোর: ভারতের সঙ্গে লাগোয়া সর্বসাকুল্যে ৮ হাজার সীমান্ত পিলার থেকে মুছে গেল পাকিস্তান নামটাই। তার বদলে লেখা হয়েছে বাংলাদেশ। এমনই উদ্যোগ সম্পন্ন করার জন্য নিজের দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনি বিজিবি-কে ধন্যবাদ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই সীমান্ত স্তম্ভগুলি ছিল পুরনো অবিভক্ত পাকিস্তান আমলের। ১৯৪৭ সালে ভারত-পাকিস্তান ভাগ হয়। দুটি অংশ নিয়ে পাকিস্তান আত্মপ্রকাশ করে। তারই একটি ছিল বাংলাভাষী অধ্যুষিত পূর্ব পাকিস্তান বা পূর্ব বাংলা।

আরও পড়ুন : গরু দত্তক নিলেই এই রাজ্য়ে প্রতিদিন আয়ের সুযোগ

দেশভাগের পর ভারত ও তৎকালীন অখণ্ড পাকিস্তান তথা পূর্ব পাকিস্তানের সীমানা বরাবর স্তম্ভগুলিতে IND-PAK লেখা হয়েছিল। তারপর ১৯৭১ সালে রক্তাক্ত মুক্তিযুদ্ধের পর আত্মপ্রকাশ করে বাংলাদেশ। কিন্তু এই দীর্ঘ ৪৮ বছরের মধ্যে আর IND-PAK লেখা সীমান্ত পিলারগুলি পরিবর্তন করা হয়নি। ফলে খাতায় কলমে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত থাকলেও বাস্তবে এই ৮ হাজার পিলারে লেখা ছিল পুরনো IND-PAK শব্দ।

বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) জানিয়েছে, ভারত সীমান্তের সাতক্ষীরা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম, নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ, জামালপুর, সুনামগঞ্জ, সিলেট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা ও চট্টগ্রাম সীমান্তের বহু পিলারে PAKISTAN/PAK লেখা মুছে দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা দীর্ঘ সময় ধরে এই পাকিস্তান লেখা পিলারগুলি মুছে দেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে নির্দেশ পেয়ে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মহম্মদ সাফিনুল ইসলামের নেতৃত্বে পিলারগুলি থেকে পাকিস্তান লেখা শব্দ মুছে দেওয়ার কাজ শুরু হয়।

আরও পড়ুন : মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পারলে এন আর সি আটকে দেখাক, দিলীপ ঘোষের চ্যালেঞ্জ

বিজিবি নিজস্ব তহবিল দিয়ে বিতর্কিত সীমান্ত পিলার PAKISTAN/PAK লেখা পরিবর্তন করে BANGLADESH/BD লেখার কাজ শুরু করে। স্বাধীনতা অর্জনের ৪৮ বছর পর সেসব পিলার থেকে সম্পূর্ণ রূপে মুছে ফেলা হল পাকিস্তান শব্দটি। এর বদলে লেখা হয়েছে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত।

বাংলাদেশের সীমান্তে রয়েছে ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্য- পশ্চিমবঙ্গ, অসম, মেঘালয়, ত্রিপুরা, মিজোরাম। এই সব এলাকার সঙ্গে সীমান্ত এলাকার দুর্গম ও জঙ্গল ঘেরা বহু পিলার খুঁজে বের করতে সময় লেগেছে। তারপর পুরনো পিলারগুলিতে পাকিস্তান লেখা শব্দ মুছে দেওয়ার কাজ চলেছে।