ঢাকা:  ক্রমশ ভয়াবহ আকার নিচ্ছে করোনা। সংক্রমণের কোথায় শেষ তা এখনও পরিষ্কার নয়। কয়েকটি দেশ ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ করলেও এখনও পর্যন্ত সেভাবে আশা দেখাতে পারেনি। একদিকে যখন সংক্রমণ ক্রমশ বাড়ছে অন্যদিকে ক্রমশ খারাপ হচ্ছে বিশ্বের অর্থনীতি।

যার প্রভাব পড়তে চলেছে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলির উপরেও। খারাপ হচ্ছে চাকরি অবস্থা। নতুন করে তৈরি হচ্ছে না কর্মসংস্থান।

এর ফলে অনেকেই ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে অনেক ক্ষেত্রেই নিয়োগ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে সরকারি ক্ষেত্রগুলি। গোটা বিশ্বেই কার্যত একই ছবি। তবে এই পরিস্থিতিতে সরকারি চাকরি পাওয়া নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত নিল হাসিনা সরকার। করোনা মহামারীর কারণে সরকারি চাকরি প্রার্থীদের বয়সে পাঁচ মাস ছাড় দিল বাংলাদেশ সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সরকারি চাকরি প্রার্থীদের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন সংবাদ মাধ্যমকে এমনটাই জানিয়েছেন। এর ফলে সরকারি চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের যুবক-যুবতিরা কিছুটা হলেও সুবিধা পাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, চলতি বছরের গত ২৫ মার্চ যাদের বয়স ৩০ বছর হবে তারা আগস্ট পরবর্তী সময়ের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে আবেদনের সুযোগ পাবেন। করোনা দুর্যোগকালীন ৩০ বছর পেরিয়ে যাওয়া প্রার্থীদের চাকরির আবেদনে সরকার পাঁচ মাসের এই সময় ছাড় দিয়েছে।

তিনি বলেন, গত ২৬ মার্চের পর এপ্রিল, মে, জুন, জুলাই ও আগস্ট পর্যন্ত- এই পাঁচ মাস যেসব মন্ত্রণালয় চাকরির জন্য বিজ্ঞাপন দিতে পারেনি, তারা আগস্টের পর থেকে বিজ্ঞপ্তি দিচ্ছে। সেক্ষেত্রে চাকরি প্রার্থী যারা থাকবে তাদের বয়স ২৫ মার্চ ৩০ বছর হতে হবে। আবেদনকারীদের জন্য এ সুবিধা গত আগস্ট মাস পর্যন্ত থাকবে বলে জানান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী।

অন্যদিকে, দু লক্ষের বেশি সুস্থ। মৃত ৪ হাজার ৭০০ পার করেছে। এই অবস্থায় বাংলাদেশ কিছুটা স্বস্তিতে। গত চার মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন করোনা সংক্রমণ নথিবদ্ধ করা হলো। প্রতিবেশী ভারতে সংক্রমণ দিনকে দিন উদ্বেগজনক আকার নিচ্ছে।

অধিদফতরের তথ্যে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্তের হার আবার কমতে শুরু করেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন নমুনা পরীক্ষা কমেছে, তাই শনাক্ত কমছে। বাংলাদেশের করোনার প্যাটার্ন অন্য দেশের সঙ্গে মিলছে না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রমণের হার কমছে। সময় লাগবে এখনও।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, বাংলাদেশে করোনা শনাক্তে নমুনা পরীক্ষা শুরু হয় গত ২১ জানুয়ারি। ১৮ মার্চ প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।