ঢাকা: শ্রমিক সংগঠনগুলির লাগাতার প্রতিবাদ চলছেই। তবে সরকারও অনড়। এমনই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে ধারাবাহিকভাবে লোকসানে থাকা রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোর প্রায় ২৫ হাজার স্থায়ী শ্রমিককে স্বেচ্ছা অবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত সরকারের। করোনা হামলায় বিপর্যস্ত অর্থনীতি। তার প্রভাব পড়ল দেশীয় পাট শিল্পে। দেশের ২৬টি পাটকলের হাজার হাজার শ্রমিককে স্বেচ্ছাবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিল আওয়ামী লীগ সরকার।

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী জানিয়েছেন, “পাটকলগুলোতে লোকসান হচ্ছে, এজন্য সরকার চিন্তা করেছে শ্রমিকদের গোল্ডেন হ্যান্ডশেক দিয়ে এই খাতকে এগিয়ে নিতে।” রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোতে ২৪ হাজার ৮৮৬ জন স্থায়ী কর্মচারী রয়েছেন।

পাট সচিব জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের মাধ্যমে শ্রমিকদের চাকরির অবসান করতে। শ্রমিকদের গোল্ডেন হ্যান্ডশেক দেওয়ার পর পিপিপি (সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব) আওতায় পাটকলগুলোর আধুনিক করে উৎপাদনমুখী করা হবে। তখন এসব শ্রমিক সেখানে চাকরি করার সুযোগ পাবেন।

তিনি আরও জানান, ২০১৩ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত ৮ হাজার ৯৫৪ জন পাটকল শ্রমিক অবসরে গিয়েছেন। অর্থ সংকটে তাদের অবসর ভাতা দেওয়া এখনও সম্ভব হয়নি। বিজেএমসির আওতায় পাটকল রয়েছে ২৬টি।বেসরকারি খাতের পাটকলগুলো লাভ করলেও অভিযোগ, অনিয়ম ও দুর্নীতিতে বছরের পর বছর লোকসান গুনছে সরকারি পাটকলগুলি।

লোকসানে থাকা পাটকলগুলির জন্য আর্থিক সহায়তা প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানান, ‘রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোকে গত ১০ বছরে ৭ হাজার কোটি টাকা দেয়া হয়েছে। পাটকলে আর কতদিন অর্থায়ন করব? গত ১০ বছরে তো আমরা ৭ হাজার কোটি টাকা দিয়েছি। এটা অনেক বড় টাকা।’ এদিকে পাটকলগুলির শ্রমিক সংগঠন প্রতিবাদে সামিল। লাগাতার আন্দোলনের প্রস্তুতি চলছে বলেই জানা গিয়েছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV