ঢাকাঃ  ভয়ঙ্কর বন্যার কবলে ভারতের একপ্রান্ত। ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে উত্তরবঙ্গেই ভয়ঙ্কর বন্যা দেখা দিয়েছে। ভারতের পাশাপাশি বন্যার কবলে পড়েছে বাংলাদেশও। অতিরিক্ত জল ক্রমশ বাংলাদেশের দিকে বয়ে যাচ্ছে। যার ফলে বাংলাদেশের একাংশে প্রবল বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের ভয়ঙ্কর বন্যা দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, এর ফলে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ ও দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। তবে বন্যার বিষয়ে সরকারের সার্বিক প্রস্তুতি রয়েছে।

আজ রবিবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রক সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি বৈঠকে বসে। বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম এমনটাই বলেন।

বর্তমানে দেশের ২৮টি জেলা বন্যাকবলিত উল্লেখ করে তাজুল ইসলাম বলেন, চিনের জল যখন পুরোদমে আসা শুরু করবে তখন বন্যা ভয়াবহ হতে পারে। সরকার আশঙ্কা করছে এবারের বন্যা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। সেইভাবে আগাম প্রস্তুতিও সরকারের আছে। বন্যা যেন দীর্ঘস্থায়ী না হয়— সেটা আমরা কামনা করি। তবে হলেও যেন আমরা মোকাবিলা করতে পারি।

তিনি আরও বলেন, ইতিমধ্যে বাংলাদেশ সরকার সবরকম প্রস্তুতি সেরে রেখেছেন। ইতিমধ্যে ২৮টি জেলায় বন্যা হয়েছে। এক্ষেত্রে কিছু ক্ষেত্রে ত্রাণ কম পাওয়া বা না-পাওয়ার অভিযোগ থাকতেই পারে। হয়তো হতে পারে যেখানে ১০০ টন ত্রাণ সাহায্য দরকার, দেওয়া হয়েছে কয়েক টন। তবে মন্ত্রণালয় এসব মনিটর করছে। তাদের কার্যক্রম ও মনিটর যাতে আরও গতিশীল ও কার্যকরী হয়, সেটা বলা হয়েছে। মানুষ যেন বেশি কষ্টে না পড়ে তা দেখতে বলা হয়েছে। আমরা বলেছি, ত্রাণ যাতে কম না পড়ে বা অপ্রতুল না হয়— সেটা আমরা দেখতে বলেছি।

তাজুল ইসলাম জানান, আগামীকাল সোমবার সরকারের পক্ষ থেকে বন্যা উপদ্রুত এলাকা সফরে যাওয়া হবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে যেখানে যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার তা নেবে। সংসদীয় কমিটির সদস্যের মধ্যে আগ্রহী কেউ থাকলে ত্রাণ তৎপরতায় অংশ নিতে পারেন। বন্যায় ত্রাণ তৎপরতা নিয়ে মন্ত্রণালয়ের কাজে কমিটি খুশি বলেও জানান তিনি।