ঢাকা: দুর্নীতির মামলায় জেলে গিয়েছেন বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া৷ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী জেলে যেতেই শুরু হল বিক্ষিপ্ত হিংসা৷ বিভিন্ন স্থানে হামলা চালাচ্ছে বিএনপির উত্তেজিত সমর্থকরা৷ ফলে বৃহস্পতিবার রাত থেকেই আরও উত্তপ্ত বাংলাদেশ৷

নেত্রী জেলে যেতেই সাংবাদিক সম্মেলনে বিএনপি জানায়, শুক্র ও শনিবার শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ বিক্ষোভ সংঘটিত হবে৷ তবে তার আগেই বিক্ষিপ্ত হিংসা ছড়াতে শুরু করল৷ ফলে আগামী ৪৮ ঘণ্টায় পরিস্থিতি আরও রক্তাক্ত হবে তারই আশঙ্কা তৈরি হয়েছে রাজধানী শহরে৷

পডুন: খালেদা জেলে যাচ্ছেন খবরেই দূতাবাসে ঢুকে ভাঙচুর

  • ঢাকাতে কড়া নিরাপত্তা থাকলেও জনগণ তেমন বাইরে বের হননি৷
  • কিশোরগঞ্জ শহরের আখড়াবাজার মোড় এলাকায় বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের ছোঁড়া গুলিতে চার বিএনপি কর্মী গুলিবিদ্ধ।
  • চট্টগ্রাম থেকে সংঘর্ষের খবর আসছে৷ সেখানে গ্রেফতার করা হয়েছে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসকে আটক করা হয়েছে৷
  • রংপুরে বিএনপি সমর্থক ও তাদের শাখা সংগঠন যুবদলের কর্মীদের সঙ্গে আওয়ামি লিগ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে৷ এতে অন্তত ২০ জন জখম হয়েছেন৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রায়ট-কার ব্যবহার করে সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ ও লাঠি চার্জ করে পুলিশ। প্রায় দেড় ঘণ্টা ব্যাপী সংঘর্ষের সময় নগরীর সব শপিং মল, মার্কেট, দোকান-পাট বন্ধ হয়ে যায়। রাস্তাঘাটও যানবাহন শূন্য হয়ে পড়েছে৷

পড়ুন: EXCLUSIVE লন্ডনে নিদ্রাহীন খালেদাপুত্র ফোনেই জানলেন মায়ের জেল সংবাদ

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়ে খালেদা জিয়া জেলে গিয়েছেন৷ তাঁর পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে৷ পুত্র ‘পলাতক’ তারেক রহমানের ১০ বছরের সাজা হয়েছে৷ রায়ে বলা হয়েছে, বিদেশ থেকে আসা অনুদান বাবাদ দু কোটি১০ লক্ষের বেশি টাকা তছরুপ করেছে জিয়া পরিবার ও বিএনপি শীর্ষ নেতৃত্ব৷  সংগঠনের মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, খালেদা জিয়া দলের অবিসংবাদী নেতা তার সাময়িক কারাবরণ কোনও প্রভাব ফেলবে না, আগেও ফেলেনি, ভবিষ্যতেও ফেলবে না।

আরও পড়ুন: খালেদার জেল হলেই হিংসা ছড়াতে তৈরি জামাত

খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠালে হিংসাত্মক আন্দোলন হবে এমনই হুমকি দিয়েছিল জামাতা ইসলামি৷ কট্টরপন্থী এই সংগঠন বিবৃতি দিয়ে শুক্রবার বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে৷ জামাত ও বিএনপি পথে নেমে বিক্ষোভ শুরু করায় ছড়িয়েছে আতঙ্ক৷

পরিস্থিতি ঘোরালো হয় সকাল থেকেই৷ বিএনপি ও জোট শরিক জামাত ইসলামি কর্মীরা ঢাকার বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে৷ আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় বাইকে৷ কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়ে হামলাকারীদের তাড়িয়ে দেয় পুলিশ৷ যদিও শুক্রবার সকাল থেকে নতুন করে উত্তপ্ত হতে পারে রাজধানী শহর৷