ঢাকাঃ  বসে গেল গোপালগঞ্জ জেলা শহরের মারকাজ মহল্লার সামনের রাস্তা। রাতের অন্ধকারে সেটি অনেকটাই ডেবে যায়। আজ বুধবার সকালে এলাকাবাসী দেখতে পান ১০০ ফুট প্রশস্ত এই সড়কটি প্রায় চার ফুট পুরোপুরি দেবে গিয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, শহরের মধুমতি লেক থেকে অবৈধভাবে বালি তোলার জন্যেই রাস্তাটির এই হাল। তারা দ্রুত এটি মেরামতের দাবি জানিয়েছেন।

স্থানীয়রা জানান, কিছুদিন আগে পাঁচড়িয়া খালের তীরের খাদ্য গুদামের সামনের সড়কটিও একই কারণে বসে যায়। এছাড়া গোপালগঞ্জ-কোটালীপাড়া সড়ক, গান্ধিয়াসুর-বাজুনিয়া সড়ক, কাঠি-বৌলতলী সড়কসহ জেলার বিভিন্ন সড়কের পাশে খালে বা মালিকানা জমি থেকে মিনি ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করা হচ্ছে। এটি সারা বছরেরই চিত্র, কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে কার্যকরী পদক্ষেপ না নেওয়ায় এসব রাস্তা দেবে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে।

ক্ষতিগ্রস্ত সড়কটির পাশের অধিবাসী এবং গোপালগঞ্জ পুরসভার কাউন্সিলর ইসলাম জানিয়েছেন, ‘কিছুদিন আগে শহরের মধুমতি লেক খনন করা হয়েছে। স্ক্যাবিটর দিয়ে মাটি না কেটে মিনি ড্রেজার দিয়ে ওই এলাকায় খনন করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হয়েছে। ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করলে আশপাশের রাস্তা বা বাড়ির মাটির নিচের বালিও সরে যায়। নিচের স্তরের বালি সরে গিয়েই আমার বাড়ির সামনের পাকা রাস্তাটি দেবে গিয়েছে।’ আশপাশ এলাকায় আরও দু-এক জায়গায় দেবে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন এই কাউন্সিলর।

এই ব্যাপারে গোপালগঞ্জ পুরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র নাজমুল হাসান নাজিম জানিয়েছেন, ‘এলাবাসীর কাছে সংবাদ পেয়ে আমরা পুসভার ইঞ্জিনিয়ররা নিয়ে সরেজমিন পরিদর্শন করেছি। আগামী দু-একদিনের মধ্যেই আমরা ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাটি মেরামত করে যান চলাচলের উপযুক্ত করে দেব।’

আর এই ব্যাপারে জানতে চাইলে গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, ‘বিষয়টি আমি জানার পরই গোপালগঞ্জ পুরসভাকে নির্দেশ দিয়েছি। তারা ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। আশা করছি, অল্প সময়ের মধ্যেই রাস্তাটি মেরামত করে চলাচলের উপযোগী হবে।’