ঢাকা: পাঁচেই আটকে করোনাভাইরাসের ভয়ঙ্কর থাবা। তবে সংক্রামিত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। গত ৭২ ঘণ্টার বেশি সময়ে এভাবে করোনায় মৃত্যু থমকে থাকা নিয়ে আশাবাদী স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক।

কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) জানিয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ প্রবল করোনা সংক্রমণের মুখে দাঁড়িয়ে। এদিকে প্রতিবেশী ভারতে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী মৃত্যুর সংখ্যা। ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্লবার জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এই নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫১ জন। নতুন করে মৃত্যুর খবর নেই।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় তার জন্য আসন্ন বাংলা ১৪২৭ কে বরণের সবরকম অনুষ্ঠান বাতিল করেছে সরকার। ফলে এই বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা সহযোগে পয়লা বৈশাখ পালিত হবে না ঢাকা সহ বাংলাদেশের কোথাও।

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশে চলছে ১০ দিনের লকডাউন। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, লকডাউনের ফলে করোনা সংক্রমণ কম ছড়াবে।

ডা. সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, সারাদেশে এখনও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৩৮ জন। আর ৭৫ জন আছেন আইসোলেশনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়েছে ১৪০ জনের। এরমধ্যে দুজনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে। সর্বমোট এক হাজার ৬০২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।