ঢাকাঃ  বাংলাদেশের একটি হাসপাতালে বিধ্বংসী আগুন। রাজধানী ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালের করোনা ইউনিটে এই আগুন লাগে। জানা যাচ্ছে, বিধ্বংসী এই আগুনে এখনও পর্যন্ত পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। মৃত পাঁচজনই করোনা আক্রান্ত রোগী বলে জানা যাচ্ছে। আগুন লাগারা ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়তেই তীব্র আতঙ্ক তৈরি হয়ে যায়। রীতিমত হুড়োহুড়ি পড়ে যায় অন্যান্য রোগীদের মধ্যে।

সে দেশের সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, বুধবার রাত ৯টা ৫৫ মিনিটে বিধ্বংসী এই আগুন লাগে। বারিধারা ফায়ার স্টেশনের তিনটি দমকলের গাড়ি দ্রুত ঘটনাস্থলে আসে এবং তা নিয়ন্ত্রণে কাজ করে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ দমকল।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গুলশান জোনের সহকারী কমিশনার স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘আমরা পাঁচ জন নিহতের তথ্য পেয়েছি। তারা করোনায় আক্রান্ত ছিলেন।’ হাসপাতালের চিফ অব কমিউনিকেশন অ্যান্ড বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ডা. সাগুফা আনোয়ার বলেন, ‘আমরাও পাঁচ জন মারা যাওয়ার খবর পেয়েছি।’ এর থেকে বেশি এখনও পর্যন্ত কোনও পক্ষই কিছু জানাতে চায়নি বলে জানা যাচ্ছে।

অন্যদিকে আগুন লাগা প্রসঙ্গে আনোয়ার সাহেব আরও বলেন, ‘মূল ভবনের বাইরে করোনা ইউনিটে শর্টসার্কিট থেকে আগুন লাগে। যদিও ১০ থেকে ১২ মিনিটের মধ্যেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। সবকিছু মিলিয়ে নিয়ন্ত্রণে আছে পরিস্থিতি। কোনও ধরনের ধোঁয়া হাসপাতালের মূল ভবনের ভেতরে যায়নি।’ ফলে বড়সড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

একই সঙ্গে আনোয়ার সাহেব আরও জানান, ‘হাসপাতালের মূল ভবনের বাইরে পাঁচ বেডের আইসোলেশন ওয়ার্ড করা হয়েছিল। সেখানেই অগ্নিকাণ্ড হয়।’ বৃহস্পতিবার হাসপাতালের পুরো পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

অন্যদিকে, দমকলের একটি সূত্র জানাচ্ছে, ওই হাসপাতালের প্রচুর পরিমাণে স্যানিটাইজ মজুত করা হয়েছিল। সেখান থেকে আগুন আরও বিধ্বংসী আকার নেয় বলে জানাচ্ছে সে দেশের এক সংবাদমাধ্যম। তবে দ্রুত পরিস্থিতি আয়ত্তে এসে যাওয়াতে বড়সড় দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পাওয়া গিয়েছে বলে মনে করছেন সে দেশের প্রশাসনের আধিকারিকরা। তবে কীভাবে আগুন লাগল তা আরও ভালো ভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV