ঢাকা: বাংলাদেশে লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম এলাকায় এক ব্যক্তিকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে পিটিয়ে মারা হলো। পরে মৃতদেহে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বিবিসি জানাচ্ছে এই খবর।

লালমনিরহাট থানার পুলিশ জানিয়েছে, মৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে নমাজ চলাকালীন মসজিদে ঢুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে শয়ে শয়ে মানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। মসজিদ কর্তৃপক্ষ চেষ্টা করেও উত্তেজিত জনতার হাত থেকে ওই ব্যক্তিকে রক্ষা করতে পারেনি। সবার সামনেই তাকে পিটিয়ে মারে অনেকে। তারপর পেট্রোল ঢেলে মৃতদেহ পুড়িয়ে দেওয়া হয়।

অভিযোগ, বৃহস্পতিবার বিকেলে বুড়িমারী জামে মসজিদে ঢুকে পড়ে এক ব্যক্তি। এরপর মসজিদেই ধর্ম অবমাননা করে ওই ব্যক্তি।

জানা গিয়েছে,ওই ব্যক্তিকে কয়েকজন বাধা দেয়। সেই খবর বাইরে ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজিত জনতা মসজিদে ঢুকে ওই ব্যক্তিকে টেনে বের করে। পুলিশ জানিয়েছে, ওই ব্যক্তি ধর্মের অবমাননা করেছেন, এমন গুজব ছড়িয়ে পড়লে শত শত মানুষ জড়ো হয়ে তাকে পিটিয়ে মারে।

একই ঘটনায় আরও দুজন আক্রান্ত হয়েছেন। স্থানীয় পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মোহন্ত জানান, আগুনে পোড়া মৃতদেহের কিছুটা উদ্ধার করা হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।