ঢাকা:  ভারত এবং বাংলাদেশ সীমান্তে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আঁটসাঁট করছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ। ঢাকার রাজশাহীতে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে অতিরিক্ত বিজিবি সদস্য পাঠানো হচ্ছে। বিশেষ করে সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় টহল জোরদার করা হয়েছে। বিজিবির ১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ জানান, ব্যাটালিয়ন দফতর থেকে অতিরিক্ত বিজিবি সদস্য পাঠিয়ে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

গত ৩১ জানুয়ারি রাজশাহীর সোনাইকান্দি সীমান্তে অনুপ্রবেশ করে পদ্মা নদী থেকে পাঁচ জেলেকে ধরে নিয়ে যায় ভারতীয় সীমান্ত রক্ষা বাহিনী বিএসএফ,এমনটাই দাবি বিজিবির। এই পাঁচ বাংলাদেশির বাড়ি রাজশাহীর পবা উপজেলার গহমাবোনা এলাকায়। তারা সবাই এখন ভারতের কারাগারে রয়েছেন, বলে দাবি করা হয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের তরফে।

বিজিবি’র আধিকারিক ফেরদৌস অভিযোগ করেছেন, “আমরা সরেজমিনে মেপে দেখেছি, সীমান্তের শূন্যরেখা থেকে প্রায় এক কিলোমিটার বাংলাদেশের ভেতরে প্রবেশ করে বিএসএফ সদস্যরা পদ্মা নদী থেকে পাঁচ বাংলাদেশি জেলেকে ধরে নিয়ে গেছেন। “সীমান্তে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে রাজশাহীর খোলাবোনা ও সোনাইকান্দি বিওপির অধীন বিজিবি সদস্যরা সীমান্তে সতর্কাবস্থায় রয়েছেন। এছাড়া ব্যাটালিয়ন দফতর থেকে অতিরিক্ত বিজিবি সদস্য পাঠিয়ে টহল বাড়ানো হয়েছে।”

আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি বিজিবি ও বিএসএফের সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ে ফ্ল্যাগ বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ওই বৈঠকে অনুপ্রবেশ, জেলেদের অপহরণ ও সীমান্ত রেখা নির্ধারণ বিষয়ে আলোচনা হবে। নদী হওয়ায় ওই এলাকায় সীমান্ত পিলার নেই।