ইন্দোর: শুরুটা ভালো না-হলেও ক্যাপ্টেন মোমিনুল হক ও মুশফিকর রহিমের ব্যাটে লড়াইয়ে ফেরার চেষ্টা করলেও শেষরক্ষা হল না৷ ভারতীয় বোলারদের দাপটে মাত্র ১৫০ রানে গুটিয়ে গেল বাংলাদেশ৷

টস ভাগ্য সঙ্গ দিলেও হোলকর স্টেডিয়ামে ভারতীয় বোলােদের বিরুদ্ধে লড়তে পারলেন না বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা৷ মাত্র ৩১ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর ক্যাপ্টেন হক ও রহিমের ব্যাটে লড়াইয়ে চেষ্টা করে বাংলাদেশ৷ চতুর্থ উইকেটে দু’জনে ৬৮ রান যোগ করেন৷ কিন্ত ব্যক্তিগত ৩৭ রানে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে বোল্ড হয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন বাংলাদেশ অধিনায়ক৷ তারপর থেকে নিয়মিত উইকেট হারাতে থাকে টাইগাররা৷

এরপর বাংলাদেশ ইনিংসে জোড়া ধাক্কা দেন মহম্মদ শামি৷ পরপর মাহমুদুল্লাহ ও রহিমকে তুলে নেন ভারতের এই ডানহাতি পেসার৷ ব্যক্তিগত ৪৩ রানে রহিমের স্টাম্প ছিটকে দেন শামি৷ এটাই বাংলাদেশ ইনিংসের সর্বোচ্চ স্কোর৷ চা-বিরতির ঠিক আগে শামির জোড়া ধাক্কার পর তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে বাংলাদেশ ইনিংস৷ শামির বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতে পারেননি টাইগাররা৷

৫৮.৩ ওভারে শেষ হয়ে যায় বাংলাদেশ ইনিংস৷ ভারতীয় বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল শামি৷ ১৩ ওভারে ৫টি মেডেন-সহ মাত্র ২৭ রান দিয়ে সর্বাধিক ৩টি উইকেট নেন বাংলার ডানহাতি পেসার৷ উমেশ যাদব, ইশান্ত শর্মা ও অশ্বিন দু’টি করে উইকেট নিয়েছেন৷

টাইগারদের বিরুদ্ধে ২-১ টি-২০ সিরিজ জয়ের পর দুই টেস্টেের সিরিজ খেলতে নাম টিম ইন্ডিয়া৷ ঘরের মাঠে ভারতের সাম্প্রতিক রেকর্ড টিম ইন্ডিয়ার একাধিপত্য প্রমাণ করে৷ ২০১৩ থেকে এখনও পর্যন্ত ঘরের মাঠে ৩২টি টেস্টের মধ্যে ২৬টি ম্যাচে জয় তুলে নিয়েছে ভারত৷ ড্র হয়েছে ৫টি ম্যাচ৷ ১টি মাত্র ম্যাচে পরাজয়ের মুখ দেখেছে টিম ইন্ডিয়া৷ তাছাড়া ঘরের মাঠে টানা ১১টি টেস্ট সিরিজ জিতেছে কোহলি অ্যান্ড কোং৷

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সিরিজ জিতে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শীর্ষে থাকা ভারত ঘরের মাঠে নিজেদের রেকর্ড আরও কিছুটা উজ্জ্বল করতে তৎপর৷ ক্রিকেটমহলের একতরফা বাজি রয়েছে ভারতের দিকেই৷ টিম ইন্ডিয়ার মতো বিশ্বের সেরা টেস্ট দলের বিরুদ্ধে হারানোর কিছু নেই বলেই বাংলাদেশের উপর চাপ তুলনায় কম থাকবে৷ কিন্তু তাতেও প্রথম ইনিংসে বিরাটদের সামনে বড় রানের লক্ষ্য রাখতে পারলেন না বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা৷ টস জিতে হোলকর স্টেডিয়ামে এদিন প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মোমিনূল৷