সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়: এনআরসি নীতি প্রয়োগ নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। নরেন্দ্র মোদীর সরকার বারবার বাংলাদেশিদের হঠানোর জন্য সুর চড়িয়েছে। কিন্তু ভারতের সবথেকে স্পর্শকাতর রাজ্য কাশ্মীরেই রয়েছে এক গ্রাম ভরতি ‘বাংলাদেশ’। বাংলাদেশের বাসিন্দারা এখনও লড়ছে ‘মুক্তি’যুদ্ধের লড়াই।

কাশ্মীর, ভূস্বর্গ। আবার কাশ্মীর মানে যুদ্ধ, বিচ্ছিন্নতাবাদ, সংবিধান নানা ধরনের বিষয় উঠে আসে। কিন্তু ঈশ্বরের এমন অবাক দেশেও আছে এক বাংলাদেশ। এই বাংলাদেশ কাশ্মীরের বান্দিপোরার একটি গ্রাম। বছর দশেক আগে স্বীকৃতি পেয়েছে এই গ্রাম। খুঁজছে নতুন ভাবে বাঁচার দিশা।

কাশ্মীর অনেকটা পর্যটন নির্ভর হলেও বাংলাদেশ গ্রামে পর্যটকদের পা পরে না। কারণ, প্রথমত সীমান্ত এলাকার অশান্তি এবং কাশ্মীরের ঘুরতে যাওয়ার জায়গাগুলি থেকে অনেকটা দূরে। বিখ্যাত উলার হ্রদের তীরে ভাসমান এই বাংলাদেশ গ্রাম। তবে এই গ্রামের সবাই স্থানীয়। বাংলাদেশের সঙ্গে এদের কোনও যোগ নেই।

 

যোগ রয়েছে শুধু মুক্তিযুদ্ধের। বান্দিপোরায় একটি গ্রাম ছিল, নাম জুরিমন। ১৯৭১ সালে এই জুরিমন গ্রামের ৫-৬টি ঘরে আগুন লাগে। আগুনের শিখায় জ্বলেপুড়ে যায় ঘরগুলো। এই অবস্থায় গৃহহীন হয়ে পড়ে গ্রামের মানুষজন। তাই তারা পুড়ে যাওয়া জায়গা থেকে কিছুটা দূরে পার্শ্ববর্তী ফাঁকা জায়গায় সবাই মিলে ঘর তোলেন। ঠিক সেই সময়ই পৃথিবীর বুকে জন্ম নিচ্ছে নতুন একটি রাষ্ট্র। তার নাম বাংলাদেশ।

পূর্ব পাকিস্তান স্বাধীন হয় বাংলাদেশের জন্ম হয়। সেই একই সময় গৃহহীন মানুষগুলো দুঃসময় মোকাবিলা করে শুরু করেন তাদের নবজনম। তাই তারাও তাদের নতুন গ্রামের নাম রাখেন বাংলাদেশ। পাঁচ ছয়টি পরিবার থেকে এখন বাংলাদেশ গ্রামে থাকেন পঞ্চাশেরও বেশি পরিবার। জনসংখ্যা ৩৫০ থেকে ৪০০-র কাছাকাছি। মাছ ধরাই মূলত এই গ্রামের মানুষের প্রধান জীবিকা নির্বাহের মাধ্যম। পাশাপাশি বাদাম সংগ্রহ করাও গ্রামবাসীর অন্যতম কাজ।

বান্দিপোরার ডিসি অফিস ২০১০ সালে এই গ্রামটিকে আলাদা গ্রামের মর্যাদা দেয়।শ্রীনগর থেকে ৮০ কিলোমিটার উত্তর দিকে বান্দিপোরা জেলা। এই জেলার আলুসা নামক অঞ্চলের গ্রাম এই বাংলাদেশ। বান্দিপোরা-সোপোরের মাটির রাস্তা ধরে পাঁচ কিলোমিটার হাঁটলেই এই গ্রামটির অস্তিত্ব পাওয়া মিলবে।

স্বাভাবিকভাবেই উলার হ্রদের তীরে অবস্থিত গ্রামটি অতি মনোমুগ্ধকর। একপাশে রয়েছে সুউচ্চ পর্বত। বাকি তিন দিক ঘিরে রয়েছে স্বচ্ছ জলরাশি। এখনও ওই অঞ্চলটি ‘unexplored’ বলা যেতেই পারে। ভ্রমণপিপাসু বাঙালির কাছে এই গ্রাম হতেই পারে এক নয়া ডেসটিনেশন।