অ্যান্টিগুয়া: ক্যারিবিয়ান সফরে লজ্জার রেকর্ড গড়ল শাকিব আল হাসানের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ৷ অ্যান্টিগুয়ার স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে মাত্র ৪৩ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ৷ টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এটিই বাংলাদেশের সর্বনিম্ন ইনিংস৷ এর আগে ২০০৭ সালে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে কলম্বো টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৬২ রানে অলআউট হয়েছিল বাংলাদেশ৷ এতদিন সেটাই ছিল বাংলাদেশের সব থেকে কম রানের টেস্ট ইনিংস৷

বাংলাদেশের ইনিংস স্থায়ী হয় মোটে ১৮.৪ ওভার৷ সব থেকে কম বলের প্রথম ইনিংসের তালিকায় বাংলাদেশ নাম তুলে ফেলে দু’নম্বরে৷ ২০১৫ সালে নটিংহ্যামে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়া ১১১ বলে ৬০ রানে অলআউট হয়েছিল৷ বাংলাদেশ সেখানে প্রথম ইনিংসে খেলে ১১২টি বল৷

১৯৭৪ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ভারত অলআউট হয়েছিল ৪২ রানে৷ তার পর থেকে আর কোনও দল এত কম রানের টেস্ট ইনিংস খেলেনি৷ সুতরাং গত ৪৪ বছরে এটিই সর্বনিন্ম টেস্ট ইনিংস৷

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে আর কোনও দল এত কম রানে গুটিয়ে যায়নি৷ ১৯৯৪ সালে পোর্ট অফ স্পেনে ইংল্যান্ডকে ৪৬ রানে অলআউট করেছিল ক্যারিবিয়ান দল৷

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একসময় ৬ রানে পাঁচ উইকেট নেওয়া কেমার রোচের বোলিং গড় দাঁড়ায় ৫-১-৮-৫৷ মাত্র ১২ বলের ব্যবধানে বাংলাদেশের পাঁচজন ব্যাটসম্যানকে ফেরত পাঠান রোচ৷

টেস্টের প্রথম ঘণ্টায় তামিম (৪), মোমিনূল (১), মুশফিকুর (০), শাকিব (০) ও মাহমুদুল্লাহকে (০) ফেরত পাঠানো রোচ এদিন রেকর্ড বইয়ে নাম তুলে ফেলেন৷ মন্টি নোবেল ও জ্যাক কালিসের পাশাপাশি ১২ বলের মধ্যে পাঁচ উইকেট নেওয়া তৃতীয় টেস্ট বোলারে পরিণত হন তিনি৷

বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ২৫ রান করেন লিটন দাস৷ দু’অঙ্কের রানে পৌঁছনো একমাত্র বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান তিনি৷ রোচের পাঁচ উইকেট ছাড়া মিগুয়েল কামিমন্স তিনটি ও হোল্ডার দু’টি উইকেট দখল করেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.