কলকাতা : নতুন কৃষি বিলের বিরোধিতায় পথে নামলো বাংলা পক্ষ। উত্তর ২৪ পরগনা শহরাঞ্চল জেলার ক্রেতাদেরকে এই বিলের অপকারিতা বোঝানোর সঙ্গে বিভিন্ন দোকানদারদের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের থেকে এই সম্পর্কিত মতামত নেয় তারা। উত্তর চব্বিশ পরগণা শহরাঞ্চল জেলার বিধাননগর এলাকায় হাতে প্ল্যাকার্ড ও রাস্তায় আলু ও পেঁয়াজ রেখে ব্র্যান্ডেড হলে আলু ও পেঁয়াজ সাধারণ মানুষের কি অবস্থা হবে সেই নিয়ে প্রতিবাদে সরব হয়েছে আজ বাংলা পক্ষ।

তারা মনে করছে , ‘এই বিল ফ্যাসিবাদের হাত শক্ত করার বিল, এই বিল পুঁজিবাদকে আরও শক্তিশালী করার মতো একটি বিল বিধাননগরের করুণাময়ী এলাকার কাছে বিকে বাজার এলাকায় বাংলা পক্ষ উত্তর ২৪ পরগণা শহরাঞ্চল সাংগঠনিক জেলার বিধাননগর ইউনিটের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের দ্বারা চাপিয়ে দেওয়া কৃষিবিরোধী ও গনবিরোধী কৃষি বিলের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এই কর্মসূচির মূল উদ্দেশ্য ছিল সাধারন মানুষকে এই মারণ বিলের সম্পর্কে ওয়াকিবহাল করা’

বাংলা পক্ষ জানিয়েছে, ‘অত্যবশ্যকীয় পণ্যের তালিকা থেকে কৃষিজাত দ্রব্যকে বাইরে রাখা, কৃষি সংক্রান্ত ব্যাপারে রাজ্য সরকারের ক্ষমতা লোপ করা, কৃষকদের নিজস্ব মন্ডির বাইরে ও ই-কমার্স ব্যবহার করে তার কৃষিজাত পণ্যের বিপনন ও বিক্রয় করার মত অবাস্তব ও হাস্যকর ব্যবস্থা করা, কৃষিজাত পণ্যের অস্বাভাবিক মজুতের বিরুদ্ধে কোনও আইনি সংস্থান না রাখা ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ের ওপরে সাধারণ মানুষকে সচেতন করার প্রচেষ্টা আমরা করি।’

সংসদে পাশ হওয়া কৃষি বিলগুলিতে রবিবার স্বাক্ষর করেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। বিল আইনে পরিণত হয়েছে। তারপর থেকেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত উত্তাল হচ্ছে কৃষকদের বিক্ষোভে। রাজনৈতিক বিক্ষোভের পাশাপাশি চলছে কৃষকদের বিক্ষোভ প্রদর্শনও। দিল্লিতে পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। ইন্ডিয়া গেটের সামনে বিক্ষোভে আগুন ধরানো হয় একটি ট্র্যাক্টরে।

এসব দেখে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘আজ যখন কেন্দ্র সরকার কৃষকদের অধিকার দিচ্ছে, এই লোকেরা বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন। ওঁরা আসলে চান যাতে কৃষকরা খোলা বাজারে তাঁদের পণ্য় বিক্রি করতে না পারেন। যেসব পণ্য় ও সরঞ্জামকে কৃষকরা পুজো করেন, সেগুলি জ্বালিয়ে দিয়ে আদতে কৃষকদের অপমান করছেন ওঁরা’। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আরও বলেছেন, ”কৃষকরা এখন থেকে যে কাউকে, যেখানে খুশি তাঁদের পণ্য় বিক্রি করতে পারবেন। কিন্তু যখন কেন্দ্র এ অধিকার কৃষকদের দিচ্ছে, তখন ওই লোকগুলো বিরোধিতা করছেন। তাঁরা আসলে চান, যাতে মধ্য়স্বত্বভোগীরা ফায়দা তুলতে পারেন। তাঁরা কৃষকদের স্বাধীনতার বিরোধিতা করছেন”।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।