স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : এতদিন শুধুমাত্র বাংলা ও বাঙালির দাবিদাওয়া নিয়েই সোচ্চার হয়েছে বাংলাপক্ষ। এবার তাঁরা অন্য ভাষার হয়েও প্রতিবাদে নামলেন। প্রতিবাদ সাংসদ কানিমোঝির হয়ে। তিনি হিন্দি না বলায় তাঁর নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলে এক CISF অফিসার। এর বিরুদ্ধেই প্রতিবাদে নেমেছে বাংলাপক্ষ। মূলত তাঁদের বর্তমান লড়াই যে হিন্দি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে এই প্রতিবাদে তা স্পষ্ট।

তাঁরা জানাচ্ছেন , ‘মাননীয়া সাংসদ কানিমোঝির নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিমানবন্দরে নিযুক্ত CISF অফিসার যে জাতি বিদ্বেষী মানসিকতার পরিচয় দিয়েছে, বাঙালী সহ অহিন্দিভাষী জাতির কাছে এই অভিজ্ঞতা প্রতিদিনের হয়ে উঠেছে। আমরা বাঙালি জাতীয়তাবাদী সংগঠন বাংলা পক্ষ, এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি এবং দাবি করছি ঐ CISF অফিসারকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হোক ও নাগরিকত্ব নিয়ে সন্দেহ করার ক্ষেত্রে ভারতীয় দণ্ডবিধির উপযুক্ত ধারায় তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হোক।’ তাঁদের দাবি, ‘এই বাংলা এবং ভারতের বিভিন্ন জায়গায়, বাংলা পক্ষ সদস‍্যরা যেমন গর্গ চ‍্যাটার্জী, অমিত সেন, আজিম শেখ, সহেলী চক্রবর্তী, জিয়াউল হক, অভিজিৎ কুণ্ডু সহ অনেকেই বাংলাদেশী বা অভারতীয় তকমা পেয়েছেন বিভিন্ন সময়ে এই CISF, RPF, BSF, CRPF, ব‍্যাঙ্ককর্মী, বিমানবন্দর অথবা রেলকর্মীদের কাছে। কিছু কেন্দ্রীয় আধা সামরিকবাহিনীর ব‍্যক্তির এই মানসিকতা ক্রমশই ছড়িয়ে পড়ছে। এই পরিস্থিতিতে বাংলা পক্ষ দাবি করছে, ১) কোন রাজ‍্যে নিযুক্ত কেন্দ্রীয় বাহিনীর কর্মীদের সেইরাজ‍্য থেকেই নিয়োগ করতে হবে , এটা সর্বোচ্চ অফিসার স্তর পর্যন্ত প্রযোজ‍্য হবে। জরুরী অবস্থায় অধিক সংখ‍্যায় নিয়োগের ক্ষেত্রে অহিন্দি রাজ‍্যে অন‍্য অহিন্দি রাজ‍্য থেকেই নিযুক্ত করতে হবে। ২) সব চাকরির নিয়োগ ও নিয়োগ পরবর্তী পরীক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং মূল‍্যায়ন সব সংবিধান স্বীকৃত ভাষাতেই করতে হবে। বর্তমানে CISF এর নিয়োগের পরীক্ষা বাংলা বা তামিলে হয় না, কিন্তু হিন্দিতে হয়, তার ফল অহিন্দি জাতির উপর এই জাতি বিদ্বেষী আচরণ।’

বাংলাপক্ষ জানাচ্ছে , ‘বাংলাতে একাধিকবার এমন ঘটনা ঘটেছে যেখানে হিন্দি ভাষায় কথা না বলতে পারার জন্য মানুষকে চরম হেনস্থার শিকার হতে হয়েছে। রাজ্যের বাইরে থেকে অনেকেই সরকারি চাকরি করতে এ রাজ্যে আসেন। এরপর মানুষকে তাদের পরিষেবা দেওয়ার সময় তাঁরা এ রাজ্যের ভাষা না ব্যবহার করে নিজেদের হিন্দি ভাষাকে মানুষের ওপর চাপিয়ে দিয়ে অপমান করেন। এই বিষয়ে বাংলা পক্ষ একাধিকবার প্রতিবাদ জানিয়েছে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও