সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় : বাংলায় চাকরি পাচ্ছে না বাঙালি। বাংলার মাটিতে ব্যাবসা করছে একাধিক সংস্থা। প্রতিদিন কোটি কোটি অর্থ উপার্জন করে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু বাঙালিকে চাকরি দিতে গেলেই তারা মুখ ঘোরাচ্ছে। চাকরির আবেদনে বাঙালি বাদ দিয়ে দেওয়া হচ্ছে বিজ্ঞপ্তি। এর প্রতিবাদে নেমেছে ‘বাংলা পক্ষ’। এতদিন এর বিরুদ্ধে একের পর এমন ঘটনার বিরুদ্ধে তারা নিজেরাই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে রুখে দাঁড়িয়েছেন। এবার তারা রাজ্যের শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটকের দ্বারস্থ হয়েছেন।

মন্ত্রীকে তাঁরা জানিয়েছেন, ‘বর্তমানে বাংলার মাটিতে ব্যবসা করে এরকম অনেক সংস্থা চাকরির বিজ্ঞাপন দিচ্ছে, যেখানে বলা হচ্ছে – বাঙালীকে চাকরি দেওয়া হবে না – ‘Only Nonbengali Required’। এটা পুরোপুরি অসাংবিধানিক এবং বাঙালি জাতি বিদ্বেষী ঘটনা। বাংলার মাটিতে এটা চলতে পারে না। বাংলা ভাষার ভিত্তিতে তৈরি রাজ্য, এ রাজ্যের ৮৬% মানুযই বাংলাভাষি, সেখানে বাংলার মাটিতে ব্যবসা করে বাঙালীকে চাকরিতে নেওয়া হবে না – এটা কোন মতেই চলতে দেওয়া যায় না।’ আমরা বাংলা পক্ষ ভারতে বাঙালীর জাতীয় সংগঠন থেকে এই ব্যপারের প্রতিকারের জন্য আপনার দৃষ্টি আকর্ষন করছি।’

সংগঠনের পক্ষে জানানো হয়েছে , ‘অ্যামাজন কোম্পানি ২০,০০০ লোক নেবে বলে বিজ্ঞাপন দিয়েছে, সেখানে পছন্দের ভাষাতে হিন্দি, ইংরাজি, তামিল, তেলুগু, কন্নড় থাকলেও বাংলা নেই। বাঙালী ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম ভাষা গোষ্ঠী, এবং সারা পৃথিবী তে তৃতীয় অথচ অ্যামাজনের কাছে বাংলার কোনও স্থান নেই। কিন্তু অ্যামাজন বাংলার মাটিতে রমরমিয়ে ব্যবসা করছে। অ্যামাজনের পছন্দের ভাষা তালিকায় যাতে বাংলা ঢোকানো হয় এবং বাংলার মাটিতে চাকরির জন্য বাঙালী কে প্রাধান্য দেওয়া হয় এ ব্যপারে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আমরা বাংলা পক্ষ – ভারতে বাঙালীর জাতীয় সংগঠন থেকে শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটকের কাছে আবেদন করেছি।’

তাঁরা আরও জানাচ্ছেন , ‘COVID-19 এর দরুন বিপুল সংখ্যক বাঙালী শ্রমিক কর্মচ্যুত হয়ে বাংলায় ফিরে এসেছেন। অপরদিকে তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ, রাজস্থান, ওড়িশা, মধ্যপ্রদেশ, ঝাড়খন্ড সহ ভারতের একাধিক রাজ্য, সরকারি ও বেসরকারি চাকরিতে ৭০% থেকে ১০০% ভূমিপুত্র সংরক্ষন চালু করেছে। অনেক রাজ্যে সরকারি চাকরিতে ১০০% ভূমিপুত্র সংরক্ষন আগে থেকেই রয়েছে। এই সব রাজ্যের সরকারি চাকরিতে বাঙালি এমনিতেই চাকরি পায় না, এখন বেসরকারি চাকরিতেও বাঙালির চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা থাকলো না। অথচ এইসব রাজ্যের অধিবাসিরা এই বাংলাতে এসে বহাল তবিয়তে সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করছে এবং বাংলার ভূমিপুত্রদের কর্মসংস্থানের অধিকারে ভাগ বসাচ্ছে।’ তাই মলয় ঘটককে তাঁরা জানিয়েছেন, ‘ফিরে আসা বাঙালী শ্রমিকদের বাংলার মাটিতেই কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হোক। বাংলার মাটিতে বাঙালী শ্রমীকদের যেন অগ্রাধিকার দেওয়া হয় তা নিশ্চিত করতে হবে। বাংলার কলকারখানা এবং কোম্পানিগুলোতে যাতে কমপক্ষে ৯০% বাঙালী শ্রমিক কর্মচারী নিয়োগ করা হয় তার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ