কলকাতা : আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সে বহু বছর ধরেই বাংলা রঞ্জি ক্রিকেট দলের ক্রিকেটার সুযোগ পায় না। বিগত বছর তিনেকের বেশী সময় ধরে শাহরুখের দল বাংলার কোনও ক্রিকেটারের হয়ে বিডে অংশই নেয় না। অথচ ঈশান পোড়েল, ঋদ্ধিমান সাহাদের অন্য দলের হয়ে খেলতে দেখা যায়। এই নিয়ে অনেকে বাংলার প্রাক্তন ক্রিকেটার সরব হয়েছেন। কিন্তু এবার এই বিষয় নিয়ে রণে নামছে বাংলাপক্ষ। শুধু কেকেআরে বাংলার ক্রিকেটার নয় সঙ্গে রঞ্জি দলে বাঙালি ক্রিকেটার কম সুযোগ পাচ্ছে এমন অভিযোগ নিয়েও তাঁরা ইডেনে গিয়ে ক্ষোভ দেখাবে বলে জানিয়েছে।

বাংলাপক্ষের তরফে কৌশিক মাইতি জানিয়েছেন , ‘আইপিএলে এবং রঞ্জিতে ব্রাত্য বাঙালি। এর প্রতিবাদে আজ শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী বিকাল ৪.৩০এ ইডেন গার্ডেনের সামনে বাংলা পক্ষর প্রতিবাদ জানাবে।’ একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন , ‘আমাদের দাবি, ১. IPL কলকাতা নাইট রাইডার্স টিমে ব্রাত্য বাংলার বাঙালি ক্রিকেটাররা। কেন? বাঙালি ক্রিকেটার না নিলে ইডেনে খেলা যাবে না এবং টিমের নাম থেকে ‘কলকাতা’ সরাতে হবে। ২. বাংলার রঞ্জি টিমে ১১ জন প্লেয়ারই বাংলার ভূমিপুত্র হতে হবে।
৩. রঞ্জি দল বাছাইয়ের জন্য জেলা ভিত্তিক টুর্নামেন্ট করতে হবে।’

কিন্তু বাংলা রঞ্জি বা রাজ্য দলে কি ব্রাত্য বাঙালি? বাংলার সদ্য বিজয় হাজারে ট্রফিতে খেলেছেন অনুষ্টুপ মজুমদার, কাইফ আহমেদ, অভিমন্যু ঈশ্বরণ, বিবেক সিং, এবং শ্রীবৎস গোস্বামী , ঈশান পোড়েল, আমির গনি, সায়ন ঘোষ, বিবেক সিংয়ের মতো খেলোয়াড়রা। ঘটনা হল বাংলাপক্ষের অভিযোগ অনুযায়ী থেকে দেখতে গেলে সত্যিই বাঙালির পরিমান দলে কমছে। এদিকে মেগা ইভেন্ট আইপিএলের নিলাম পর্ব আগেই হয়ে গিয়েছে। সেখানে এই বছরের নিলামেও বাংলার কারও দিকে ঘুরেও তাকায়নি কলকাতা শিবির। নিলামের কিছুদিন আগেই দলের স্কাউট হিসেবে বাংলার প্রাক্তন খেলোয়াড় সৌরাসিস লাহিড়ীকে নিযুক্ত করে কেকেআর শিবির। তারপরেও এমন হওয়াতে অনেকেই অবাক হয়েছেন।

আশা ছিল বাংলা দলের খেলোয়াড়রা জায়গা পাবেন কেকেআর দলে। যেমন মুম্বই সুযোগ দিলো অর্জুন তেন্ডুলকরকে। পাঞ্জাব সুযোগ দেয় মনদীপদের মত রাজ্যের খেলোয়াড়দের। নিলামে ভেঙ্কটেশ আইয়ার (২০ লক্ষ), বৈভব আরোরা (২০ লক্ষ) শেলডন জ্যাকসন (২০ লক্ষ) দের মত খেলোয়াড়দের বেশ প্রাইসে নিলেও অনুষ্টুপ মজুমদার, অভিমন্যু ঈশ্বরণদের দিকে ঘুরে তাকায়নি কেকেআর।

বেশ কয়েক বছর ধরেই বাংলার খেলোয়াড়দের ব্রাত্য রেখেছে কেকেআর। অথচ একটা সময় মনোজ তিওয়ারি, দেবব্রত দাস, লক্ষ্মীরতন শুক্লরা কেকেআরের জার্সিতে একসঙ্গে খেলেছেন। এঁদের হাত ধরেই দু’বার চ্যাম্পিয়ন হয় কলকাতা। এবারের বিডে উঠেছিল অনুষ্টুপ মজুমদার, অভিমন্যু ঈশ্বরণ, প্রয়াস রায় বর্মণ, আকাশদীপ, সায়ন ঘোষ, বিবেক সিং এবং আমির গনির নাম। তাঁদের মধ্যে বিবেকের নাম নিলামে উঠলেও কোনও দলই তাঁর জন্য বিড করেনি। নীরব থেকেছে কেকেআরও। বাকি ৬ জনের নাম নিলামে ওঠেনি। কোনও ফ্র্যাঞ্চাইজিই এই ছ’জনকে কেনার ব্যাপারে কোনও আগ্রহ প্রকাশ করেনি। যার ফলে আইপিএলে বাংলার প্রতিনিধি রইলেন মাত্র চারজন। ঋদ্ধিমান সাহা, শ্রীবত্‍স গোস্বামী, শাহবাজ আহমেদ এবং ঈশান পোড়েল, মহম্মদ শামি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।