ব্যারাকপুর: পার্টি অফিস ঘেরাও কর্মসূচী চলাকালীন রবিবার শ্যামনগর ও জগদ্দলে অর্জুন সিং’এর উপর আক্রমণের প্রতিবাদে সোমবার ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রসহ জগদ্দলে ১২ ঘণ্টার বন্ধ ঘোষণা করে রাজ্য বিজেপি। সেই মতো আজ সোমবার জগদ্দল ও ভাটপাড়ায় বিভিন্ন চটকল নির্দিষ্ট সময়ে খুললেও দেখা মেলেনি কোনও শ্রমিকের। রাস্তায় পুলিশ থাকলেও সেইভাবে সাধারণ মানুষের দেখা নেই। কারখানাগুলিতে শিফট শুরুর সাইরেন বাজলেও কোনও শ্রমিক কাজে যোগ দেয়নি। সপ্তাহের প্রথমদিন কার্যত কর্মহীন হয়ে রয়েছে ব্যারাকপুর।

তৃণমূল কর্মীরা অবশ্য বন্ধ ব্যর্থ করতে ইতিমধ্যেই রাস্তায় নেমেছে এবং ব্যবসায়ীদের দোকানপাট খোলা রাখার আবেদন জানানো হচ্ছে তাদের তরফে। পাশাপাশি বিজেপি কর্মীরাও মিছিল করে রাস্তায় নেমেছে বন্ধের সমর্থনে।

রবিবার আক্রান্ত অর্জুন সিং জানান, শাসকদলের প্ররোচনাতেই পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মা তাঁর মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করে। যদিও শাসক দলের তরফ থেকে উলটো সুর শোনা গিয়েছে। তৃণমূল নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক জানান, অর্জুন সিং নিজের মাথা নিজেই ফাটিয়ে এখন মিথ্যে কথা বলছে।

ভাটপাড়া ও জগদ্দলের বিস্তীর্ণ অংশ কিন্তু বন্ধ সমর্থনে কার্যত কর্মহীন হয়ে রয়েছে। কারখানাগুলিতে রাতের শিফট শেষ করে সকালে বেরিয়ে যাওয়ার পরে আর কোন কর্মী কাজে যোগ দেয়নি। ভাটপাড়া, যা অর্জুন সিং’এর গড় বলে পরিচিত সেখানেও পুরোপুরি বন্ধের ছবি ফুটে উঠেছে। বন্ধ সমর্থনে অবরোধ করা হয় কাকিঁনাড়া রেল স্টেশনেও।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.