ফাইল ছবি

শঙ্কর দাস, বালুরঘাট: ট্রাভেল হিস্ট্রি নেই। সদ্য করোনায় আক্রান্তদের অধিকাংশরই সংক্রমিত হওয়ার সূত্র খুঁজতে গিয়ে সামনে আসছে বাজারে কেনাকাটার ঘটনা। আক্রান্তদের হিস্ট্রি শুনে বালুরঘাটের তহ-বাজারকেই আঁতুর ঘর বলে মনে করছে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। বালুরঘাট শহরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা হুহু করে বেড়ে চলায় চিন্তিত প্রশাসন।

পড়ুন আরও- বুধবার ভারত-ইইউ বৈঠক, আলোচনায় উঠে আসবে ঊর্ধ্বমুখী চিনের আগ্রাসন

জেলার অন্যান্য এলাকার চাইতে বালুরঘাটে সংক্রমণ ছড়িয়ে কারণ খুঁজতে সামনে এসেছে শহরের মাছ ও সবজি বাজারের ভিড়। বাজার থেকেই কন্ট্যাক্টের মাধ্যমে সক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য কর্তরা। যে কারণে আগামী বুধবার থেকে তিনদিন মাছ ও সবজি বাজার পুরোপুরি বন্ধ রাখার নির্দেশ জারি করেছে প্রশাসন।

পড়ুন আরও- ‘রাম ভারতীয় নন’ মন্তব্যে নেপালের প্রধানমন্ত্রীকে তুলোধনা অযোধ্যার পুরোহিতদের

বন্ধ থাকালীন তিন দিন ধরে বাজার সহ আশপাশের এলাকা স্যানিটাইজিং করা হবে বলেও প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে। সোমবারের রিপোর্ট অনুযায়ী দক্ষিণ দিনাজপুরের করোনায় চারশো’রও বেশি জন আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে আদালতের আইনজীবী সরকারী কর্মী সহ করোনা যোদ্ধা তথা ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারও রয়েছেন।

মঙ্গলবার পর্যন্ত শুধু মাত্র বালুরঘাট শহরে আক্রান্তর সংখ্যা ৪৫ ছাড়িয়ে গেছে। সংক্রমণ ঠেকাতে সংক্রমিত এলাকাগুলিকে আগেই কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত করে লকডাউন ঘোষণা করেছে প্রশাসন। লকডাউন সত্বেও প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলায় বুধবার থেকে তিনদিনের দিনের জন্য মাছ ও সবজি বাজার বন্ধ রাখা হচ্ছে বালুরঘাটে।

সোমবারই এবিষয়ে বালুরঘাট পুরসভার তরফে নির্দেশ জারি করা হয়েছে। নির্দেশে তহবাজার নিউমার্কেট সেই সঙ্গে বাজার সংলগ্ন দুইটি ওয়ার্ডের পাইকারি ও খুচরো ব্যবসা ও ছোট বড় সমস্ত দোকানপাট আগামী বুধ বৃহস্পতি ও শুক্রবার পুরোপুরি বন্ধ রাখার উল্লেখ রয়েছে।

অন্যদিকে, গোটা দেশে লাফিয়ে বাড়ছে নোভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। প্রতিদিন হাজার-হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। আক্রান্তের নিরিখে প্রতিদিনের পরিসংখ্যান আগের দিনের রেকর্ড ভাঙছে। দেশের মোট করোনা আক্রান্তের ৮৬% রোগী ১০টি রাজ্যের। মঙ্গলবার পরিসংখ্যান তুলে ধরে এমনই জানানো হয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে।

লাগামছাড়া সংক্রমণ গোটা দেশে। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ হাজার ৪৯৮ জন। নতুন করে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৫৫৩ জনের। সব মিলিয়ে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া আপডেট অনুযায়ী দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৯ লক্ষ ৬ হাজার ৭৫২। দেশে করোনায় মৃত বেড়ে ২৩ হাজার ৭২৭।

মঙ্গলবার স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, দেশের মোট সংক্রমিতের ৮৬% রোগী ১০টি রাজ্যের। তার মধ্যে ৫০% রোগী মহারাষ্ট্র ও তামিলনাড়ুর বাসিন্দা। বাকি ৩৬% করোনা রোগী বাকি ৮ রাজ্যের বাসিন্দা। দেশের মধ্যে করোনার সর্বাধিক সংক্রমণ মহারাষ্ট্রে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২ লক্ষ ৬০ হাজার ৯২৪। মহারাষ্ট্রে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০ হাজার ৪৮২।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ